ঢাকা, বৃহস্পতিবার, ২০ সেপ্টেম্বর ২০১৮, ৫ আশ্বিন ১৪২৫

2018-09-20

, ৯ মহাররম ১৪৪০

ইলিশ রক্ষায় মার্চ-এপ্রিলে মাছ ধরা নিষিদ্ধ

প্রকাশিত: ০৩:৩২ , ০২ মার্চ ২০১৭ আপডেট: ০৩:৩২ , ০২ মার্চ ২০১৭

চাঁদপুর ও লক্ষ্মীপুরে মেঘনা নদীতে মার্চ-এপ্রিলে জাটকাসহ সব ধরনের মাছ ধরা নিষিদ্ধ করেছে মৎস্য মন্ত্রণালয়। জাতীয় মাছ ইলিশ সম্পদ রক্ষায় জাটকা নিধন প্রতিরোধ কর্মসূচির আওতায় চাঁদপুরের ষাটনল থেকে লক্ষ্মীপুরের চর আলেকজান্ডার পর্যন্ত ১০০ কিলোমিটার নদীতে এই দু মাস সব ধরনের মাছ ধরা নিষিদ্ধ করা হয়েছে।

এই দু মাস চাঁদপুরের বিস্তীর্ণ নদীসীমাকে ইলিশের অভয়াশ্রম ঘোষণা করেছে মৎস্য মন্ত্রণালয়। এর মধ্যে চাঁদপুরের সীমানায় ৬০ কিলোমিটার ও বাকি ৪০ কিলোমিটার লক্ষ্মীপুরে।

চাঁদপুরে মেঘনায় মাছ ধরার কাজে নিয়োজিত রয়েছে ৪৬,৬৫৪ জন জেলে ও লক্ষ্মীপুরে রয়েছেন ৪৫,৭৭১ জন। এসব জেলেদের মধ্যে ৪১,০৪২ জন জেলে রয়েছে যারা ইলিশ শিকার করে থাকে। নদীতীরবর্তী এসব জেলের মাছ ধরা নিষিদ্ধ করার কারণে তাদেরকে আর্থিক অনুদান হিসেবে প্রতি মাসে ৪০ কেজি করে ৪ মাস চাল দেয়া হবে।

তবে চাল বিতরণে অনিয়মের অভিযোগে করছে জেলেরা। এছাড়া  আর্থিক সহায়তার পাশাপাশি বিকল্প কর্মসংস্থানের জন্যও দাবি জানিয়েছে তারা। এর প্রেক্ষিতে কর্মসংস্থান হিসেবে রিকশা-ভ্যান, হাঁস-মুরগি ও সেলাই মেশিন প্রদান করার উদ্যোগ নিয়েছে বলে জানান চাঁদপুর জেলা প্রসাশক।

এদিকে নিষিদ্ধ ঘোষিত এই সময়ে বিগত দিনের মতো এবারও গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখবে বলে জানালেন চাঁদপুর জেলার বাংলাদেশ ইউনিয়ন পরিষদের আহ্বায়ক মো. সেলিম খান ও লক্ষীপুর কোস্টগার্ডের কন্টিনজেন্ট কমান্ডার মিজানুর রহমান।

অপরদিকে জেলেরা যাতে নির্দিষ্ট সময়ে কোনভাবেই পদ্মা-মেঘনায় মাছ শিকার করতে না পারে, সেজন্য সব ধরনের ব্যবস্থা নেয়া হয়েছে বলে জানান দু জেলার মৎস্য কর্মকর্তারা।

এই বিভাগের আরো খবর

নতুন ন্যূনতম মজুরি অন্যায্য : বিশ্লেষক ও শ্রমিক প্রতিক্রিয়া

নিজস্ব প্রতিবেদক: তৈরী পোশাক শ্রমিকদের ন্যূনতম মজুরি প্রায় ৫১ শতাংশ বাড়ানো হলেও একে জীবনযাত্রার ব্যয় বৃদ্ধির তুলনায় অপ্রতুল বলে মনে করছেন...

0 মন্তব্য

আপনার মতামত প্রকাশ করুন

Message is required.
Name is required.
Email is