ঢাকা, শনিবার, ২৪ আগস্ট ২০১৯, ৯ ভাদ্র ১৪২৬

2019-08-23

, ২১ জিলহজ্জ ১৪৪০

সমুদ্রে রাজস্ব সীমানা বাড়াতে চট্টগ্রাম বন্দরের উদ্যোগ

প্রকাশিত: ০৪:৪৯ , ২৯ মার্চ ২০১৯ আপডেট: ০৪:৪৯ , ২৯ মার্চ ২০১৯

চট্টগ্রাম প্রতিনিধি: আয় বাড়াতে সমুদ্রে রাজস্ব সীমানা বাড়ানোর উদ্যোগ নিয়েছে চট্টগ্রাম বন্দর কর্তৃপক্ষ। গত পাঁচ বছরে বন্দরে জাহাজ প্রবেশের সংখ্যা  প্রায় ৭০ শতাংশ বাড়লেও বাড়ানো হয়নি সীমানা। ফলে বিপুল পরিমাণ রাজস্ব থেকে বঞ্চিত হতে হচ্ছে। চট্টগ্রাম বন্দর কর্তৃপক্ষ জাানলেন, সীমানা বাড়ানোর ফলে রাজস্ব আদায় বাড়বে কয়েকগুন। গতি পাবে বন্দরের উন্নয়ন কার্যক্রমও। এমন সিদ্ধান্তকে স্বাগত জানিয়েছেন বন্দর ব্যবহারকারীরাও। 
চট্টগ্রাম বন্দরে গত বছর জাহাজ ভিড়েছে ৩ হাজার ৮শ ৮৮টি। আর, ২০১৩ সালে এর সংখ্যা ছিল ২ হাজার ২শ ৯৪। বর্তমানে মহেশখালীতে এলএনজি টার্মিনাল ও বিদ্যুৎকেন্দ্র এবং মীরসরাইয়ে অর্থনৈতিক অঞ্চল নির্মাণসহ দেশজুড়েই চলছে নানা উন্নয়ন কর্মযজ্ঞ। ফলে বেড়েছে আমদানি-রপ্তানি। সেই সাথে বন্দরে বেড়েছে জাহাজের আনাগোনা। তবে বর্তমানে শুধু আনোয়ারা থেকে ফৌজদারহাট পর্যন্ত মাত্র ৭ বর্গ নটিক্যাল মাইল এলাকায় জাহাজ ও নৌযান থেকে মাশুল আদায় করতে পারছে কর্তৃপক্ষ। বিনামাশুলে পার পেয়ে যাচ্ছে কুতুবদিয়া-মহেশখালী থেকে ফিরে যাওয়া বড় জাহাজগুলো। 
তাই সমুদ্রে এবার সীমানা বাড়ানোর সিদ্ধান্ত নিয়েছে চট্টগ্রাম বন্দর কর্তৃপক্ষ। পতেঙ্গা পয়েন্ট থেকে দক্ষিণে মহেশখালী পর্যন্ত ৪২ নটিক্যাল মাইল আর উত্তরে সীতাকুন্ড পর্যন্ত ২৬ নটিক্যাল মাইল সীমানা সম্প্রসারণ করা হবে। এতে রাজস্ব আদায় বাড়ার পাশাপশি গতি আসবে বন্দরের উন্নয়ন কার্যক্রমে। 
সীমানা বাড়ানোর এই সিদ্ধান্তকে সাধুবাদ জানিয়েছেন বন্দর ব্যবহারকারীরাও। বিশ^মানের বন্দরের জন্য সীমানা সম্প্রসারণ অপরিহার্য বলেও মত তাদের। 
গেল অর্থবছরে জাহাজ থেকে মাশুল বাবদ আয় হয়েছে প্রায় ১শ’ ৬৮ কোটি টাকা। সীমানা সম্প্রসারণের পর এই আয় বাড়বে কয়েকগুন।
 

এই বিভাগের আরো খবর

বান্দরবানে পাহাড় ধস ও বন্যায় ক্ষতিগ্রস্তদের ত্রাণ সামগ্রী বিতরণ

নিজস্ব প্রতিবেদক: বান্দরবানের রোয়াংছড়ি উপজেলায় পাহাড় ধস ও বন্যায় ক্ষতিগ্রস্ত পরিবারের মাঝে নগদ অর্থ ও ত্রাণ সামগ্রী বিতরণ করেছেন...

রোহিঙ্গা প্রত্যাবাসনে চলছে তালিকাভূক্তদের সাক্ষাৎকার 

কক্সবাজার প্রতিনিধি: মিয়ানমারে প্রত্যাবাসনের জন্য কক্সবাজারের আশ্রয় কেন্দ্রে থাকা তালিকাভূক্ত রোহিঙ্গাদের সাক্ষাৎকার নেয়া চলছে। সকাল...

0 মন্তব্য

আপনার মতামত প্রকাশ করুন

Message is required.
Name is required.
Email is