ঢাকা, শনিবার, ২০ এপ্রিল ২০১৯, ৭ বৈশাখ ১৪২৬

2019-04-19

, ১৩ শাবান ১৪৪০

বিলুপ্তির পথে নীলফামারীর সৈয়দপুরের শামুকখোল পাখি

প্রকাশিত: ১০:২৯ , ২২ মার্চ ২০১৯ আপডেট: ০৪:০৮ , ২২ মার্চ ২০১৯

নীলফামারী প্রতিনিধি: নীলফামারীর সৈয়দপুরের সোনাখুলী গ্রামে সচেতনতা, আবাসস্থল, খাবার ও নিরাপত্তার অভাবে বিলুপ্তির পথে বিপন্ন সারস প্রজাতির দুই শতাধিক শামুকখোল পাখি। তবে পাখিগুলোকে পরিচর্যা করছে গ্রামবাসী ও স্থানীয় স্বেচ্ছাসেবি সংগঠন সেতুবন্ধনের সদস্যরা। এদিকে, গ্রামটিকে শামুকখোল পাখিসহ অন্যান্য পাখির অভয়াশ্রম ঘোষণা করেছে জেলা প্রশাসন। বাড়ানো হয়েছে হাট-বাজারে পাখি বিক্রি বন্ধে নজরদারী। 
শামুকখোল মূলত বড় আকারের জলচর পাখি। পৃথিবীতে দুই প্রজাতির শামুকখোল পাখি রয়েছে। এরমধ্যে বাংলাদেশ, ভারত ও শ্রীলঙ্কাসহ দক্ষিণ এশিয়ার অধিকাংশ অঞ্চলে সাদা কালোর সংমিশ্রণের শামুকখোল পাখি দেখা যায়। এছাড়া পুরো কালো বর্ণের অপর প্রজাতিটি আফ্রিকা অঞ্চলে পাওয়া যায়।
নীলফামারীর সৈয়দপুর উপজেলার সোনাখুলী গ্রামের বট-পাকুড় গাছে বাসা বেঁধেছে দু’শতাধিক শামুকখোল পাখি। বন্যপ্রাণি আইনে সংরক্ষিত হলেও আবাসস্থল, খাবার ও নিরাপত্তার অভাবে শামুকখোল পাখির সংখ্যা কমছে। 
এদিকে, পাখিগুলোকে নিরাপত্তা দিতে গিয়ে শিকারীদের হাতে লাঞ্চিত হচ্ছেন গ্রামের মানুষ। অকারণে মিথ্যা মামলার আসামি হচ্ছেন অনেকে।
সৈয়দপুরকে শামুকখোল পাখির অভয়াশ্রম ঘোষণা করা হয়েছে বলে জানালেন উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা।
প্রাণি সম্পদের প্রাচুর্যতা রক্ষা করতে প্রশাসন সার্বক্ষণিক সচেষ্ট রয়েছে বলে জানালেন জেলা প্রশাসক।
শামুকখোল পাখি ছাড়াও সৈয়দপুরের বিভিন্ন পল্লী এলাকায় কাক ও বাঁদুড়ের অভয়াশ্রম গড়ে তোলার কাজ চলছে। এছাড়া হাট-বাজারে পাখি বিক্রি বন্ধে নজরদারী করছে জেলা প্রশাসন।
 

এই বিভাগের আরো খবর

রোহিঙ্গাদের ফেরত পাঠাতে সহায়তা করবে চীন: স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী

নিজস্ব প্রতিবেদক: বাংলাদেশে আসা ১১ লাখ রোহিঙ্গাকে মিয়ানমারে ফেরত পাঠাতে বাংলাদেশকে সহায়তা করবে চীন। চীনে তিন দিনের সফর শেষে এসে এ কথা...

0 মন্তব্য

আপনার মতামত প্রকাশ করুন

Message is required.
Name is required.
Email is