ঢাকা, শনিবার, ২২ সেপ্টেম্বর ২০১৮, ৭ আশ্বিন ১৪২৫

2018-09-22

, ১১ মহাররম ১৪৪০

মেহেরপুরে এন্টিবায়োটিকের যথেচ্ছ ব্যবহার

প্রকাশিত: ১০:১০ , ১০ সেপ্টেম্বর ২০১৮ আপডেট: ০৯:৪০ , ১০ সেপ্টেম্বর ২০১৮

মেহেরপুর প্রতিনিধি : প্রতিনিয়তই মেহেরপুরে বাড়ছে এন্টিবায়োটিকের ব্যবহার। জটিল রোগের পাশাপাশি ছোটখাটো রোগেও হরহামেশাই ব্যবহার হচ্ছে এন্টিবায়োটিক। বিশেষজ্ঞ চিকৎসকেরা বলছেন, এভাবে এন্টিবায়োটিকের অপব্যবহার পরিস্থিতি ভয়াবহ হতে পারে। এতে করে বাড়তে পারে মৃত্যুর হারও। এ বিষয়ে আরো সচেতনার প্রয়োজন বলে মনে করেন সংশিষ্টরা।

এটি মেহেরপুর জেনারেল হাসপাতাল। হাসপাতালে ঢুকেই বহি:বিভাগে দেখা মিললো বেশ কিছু রোগীর সাথে। এদের মধ্যে ২৫টি রোগীর প্রেসক্রিপশনের মধ্যে ১৯টিতে লেখা রয়েছে এন্টিবায়োটিক ঔষধ। অথচ এদের বেশির ভাগই স্বর্দি জ্বরে আক্রান্ত। কোন রকম পরীক্ষা-নিরীক্ষা  ছাড়াই চিকৎসকেরা লিখছেন এসব এন্টিবায়োটিক ঔষধ।

চিকিৎসকরা বলছে বার বার জ্বর আসার কারণেই রোগীদের প্রেসক্রিপশনে লেখা হচ্ছে এসব  এন্টিবায়োটিক ঔষধ। অনেক ক্ষেত্রে রোগীরাই পরীক্ষা-নিরীক্ষা করতে চায়না বলে অভিযোগ করেন তারা। অথচ রোগীরা বলছে এসব ঔষধ সম্পর্কে তাদের নেই কোনই ধারনা।

এন্টিবায়োটিক সম্পর্কে ধারনা না থাকার কারণে সর্দি জ্বরে আক্রান্ত রোগীদের সহসাই এন্টিবায়োটিক দিচ্ছেন পল্লী চিকিসৎসকেরা। অনেকে আবার স্ব উদ্যোগেই ফার্মেসী থেকে নিচ্ছেন   এসব ঔষধ।

এদিকে, বিশেষজ্ঞ চিকৎসকেরা বলছেন, এন্টিবায়োটিক ব্যাকটরিয়ার বিপরীতে কাজ করে। তাই রোগীর ব্লাড কালচার ও পরীক্ষা নিরীক্ষার পরই এন্টিবায়োটিক ব্যবহার করা দরকার। তবে রোগীকে অবশ্যই এন্টিবোয়োটিক ডোজ পূর্ন করতে হবে।

এন্টিবায়োটিক অপব্যবহারে অনেকেই র‌্যাজিস্ট্যান্স হওয়ায় তাদের এসব ওষুধ কাজে আসবে না। এভাবে বার বার এন্টিবায়োটিক প্রয়োগে এসব রোগীদের জন্য আর এন্টিবায়োটিক কাজে আসবে না। এ অবস্থায় অনেক ওষুধ থাকলে তা আর কাজে আসবে না। তাই সময় থাকতে সাবাধানতার তাগিদ দিলেন বিশেষজ্ঞরা।

 

এই বিভাগের আরো খবর

গাজীপুরে স্ত্রীকে ছুরিকাঘাত করে স্বামীর আত্মহত্যা 

গাজীপুর প্রতিনিধি: গাজীপুরের শ্রীপুরে স্ত্রীকে ছুরিকাঘাত করে আত্মহত্যা করেছে স্বামী। আজ শনিবার সকালে পৌর এলাকার দারগারচালা গ্রামে এ...

0 মন্তব্য

আপনার মতামত প্রকাশ করুন

Message is required.
Name is required.
Email is