ঢাকা, বুধবার, ২৪ এপ্রিল ২০১৯, ১১ বৈশাখ ১৪২৬

2019-04-23

, ১৭ শাবান ১৪৪০

শরীয়তপুরে পদ্মায় বিলীন বহু বাড়িঘর-স্থাপনা

প্রকাশিত: ১০:৩১ , ০৯ সেপ্টেম্বর ২০১৮ আপডেট: ১০:৩১ , ০৯ সেপ্টেম্বর ২০১৮

শরীয়তপুর প্রতিনিধি : শরীয়তপুরে পদ্মা নদীর ভাঙ্গন অব্যাহত রয়েছে। গত ২৪ ঘন্টায় কেদারপুর গ্রামে ভাঙনে বিলিন হয়ে গেছে অনেক বসত বাড়িসহ নানা স্থাপনা। হুমকির মুখে রয়েছে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স। ভাঙন আতংকে দিশেহারা হয়ে পড়েছে পদ্মা পারের মানুষ। সবকিছু হারিয়ে খোলা আকাশের নীচে দিন কাটছে অনেকের।

একদিন আগেও নিজের ঘরেই স্বামী সন্তান নিয়ে বসবাস করছিলেন শরীয়তপুরে কেদারপুর গ্রামের লাকি বেগম। ছিল বাড়ি ভরা গাছ-পালা, ফসলি জমি। পদ্মার অব্যাহত ভাঙ্গনে বিলিন হয়ে গেছে তার সব।

একই চিত্র গ্রামের ৩০টি পরিবারের। পদ্মার এমন আকস্মিক ভাঙনে নদীগর্ভে বিলীন হচ্ছে, ঘর-বাড়ি, ফসলি জমিসহ নানা গুরুত্বপূর্ন স্থাপনা। ভাঙনে শেষ আশ্রয়টুকু হারিয়ে এখন মাথা গোজার ঠাই খুঁজে পাচ্ছেনা ক্ষতিগ্রস্ত পরিবারগুলো। নিরুপায় হয়ে খোলা আকাশের নীচেই দিন কাটছে তাদের।

হুমকির মুখে রয়েছে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সটিও। এ অবস্থায় ব্যাহত হচ্ছে চিকিৎসা সেবা।

এরই মধ্যে ক্ষতিগ্রস্থদের মাঝে শুকনো খাবার ও ত্রান বিতরণ করা হয়েছে বলে জানিয়েছেন নড়িয়া উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা সানজিদা ইয়াসমিন।

পদ্মা নদীর ভাঙ্গন রোধে প্রাথমিকভাবে বালু ভর্তি জিও ব্যাগ ফেলা হয়েছে বলে জানিয়েছেন পানি উন্নয়ন বোর্ডের উপ-বিভাগীয় প্রকৌশলী।

গত ২ মাসে জেলার মোক্তারেরচর, কেদারপুর ও নড়িয়া পৌরসভাসহ ১৫টি গ্রামে পদ্মার আগ্রাসী ভাঙ্গনে বিলিন হয়ে গেছে দেড় থেকে দুই শতাধিক বসত ভিটা। দ্রুত এ অবস্থার একটি সমাধান চায় স্থানীয়রা।

 

এই বিভাগের আরো খবর

রাজধানীতে তুমুল ঝড় ও বৃষ্টি, জলাবদ্ধতা, বজ্রপাতে সারাদেশে ৫জনের মৃত্যু

ডেস্ক প্রতিবেদন: রাজধানীতে ঝড়ের তাণ্ডব দেখল রাজধানীবাসী। বিকেলে ঝড়ো হাওয়াসহ তুমুল বৃষ্টিতে বিপাকে পড়েন ঘর থেকে বের হওয়া মানুষ। বিপুল...

সাগরে লঘুচাপের প্রভাবে আজও বৃষ্টি

নিজস্ব প্রতিবেদক: সাগরে লঘুচাপের প্রভাবে আজও রাজধানীতে বৃষ্টি হচ্ছে, সেই সাথে বয়ে যাচ্ছে দমকা হাওয়া। সকাল থেকে দফায় দফায় গুড়ি গুড়ি বৃষ্টির...

রাজধানীতে হঠাৎ বৃষ্টি

নিজস্ব প্রতিবেদক: পশ্চিমা লঘুচাপের প্রভাবে রোববার- ১৭ ফেব্রুয়ারি ভোরে রাজধানীতে মুষলধারে বৃষ্টি হয়েছে। ভোর ছয়টা থেকেই আকাশ ভারী মেঘে ঢেকে...

0 মন্তব্য

আপনার মতামত প্রকাশ করুন

Message is required.
Name is required.
Email is