ঢাকা, শনিবার, ১৭ নভেম্বর ২০১৮, ৩ অগ্রহায়ণ ১৪২৫

2018-11-17

, ৮ রবিউল আউয়াল ১৪৪০

বেসরকারি স্বাস্থ্যখাতের লাইসেন্স ও নবায়ন ফি বাড়ছে

প্রকাশিত: ০২:৫৬ , ০৭ সেপ্টেম্বর ২০১৮ আপডেট: ০২:৫৬ , ০৭ সেপ্টেম্বর ২০১৮

নিজস্ব প্রতিবেদক: দেশের বেসরকারি মেডিকেল কলেজ, হাসপাতাল, ক্লিনিক ও ডায়াগনস্টিক সেন্টারগুলোর লাইসেন্স ও নবায়ন ফি বাড়ানোর পদক্ষেপ নিয়েছে। অর্থ মন্ত্রণালয়ের তথ্য অনুযায়ী, এটি বাস্তবায়িত হলে ১৯৮২ সালের পর এই খাতে প্রথমবারের মত ফি বৃদ্ধি করা হবে।

বেসরকারি মেডিকেল কলেজগুলোর বার্ষিক ফি ন্যূনতম ৫০০০ টাকা থেকে সর্বোচ্চ ২.৫ লাখ টাকা পর্যন্ত বাড়ানোর পরিকল্পনা চলছে।

বিভাগীয় সদর দপ্তর, সিটি করপোরেশন, জেলা ও উপজেলা পর্যায়ে প্রতিষ্ঠিত বেসরকারি হাসপাতাল ও ক্লিনিকের বার্ষিক লাইসেন্স ও নবায়ন ফি বর্তমানে ৫ হাজার টাকা। শয্যা সংখ্যা অনুযায়ী এটি দুই লাখ টাকা পর্যন্ত বাড়ানোর প্রস্তাব দেওয়া হয়েছে।

বিভাগ ও সিটি করপোরেশনে ১০-৫০ শয্যার হাসপাতালের জন্য বার্ষিক ও নবায়ন ফি ৫০ হাজার টাকা করা হবে, তবে জেলা পর্যায়ে এটি ৪০ হাজার টাকা এবং উপজেলা পর্যায়ে ২৫ হাজার টাকা করা হবে।

বিভাগ ও সিটি কর্পোরেশনে ৫১-১০০ শয্যার বেসরকারি হাসপাতাল ও ক্লিনিকের জন্য বার্ষিক ও নবায়ন ফি এক লাখ টাকা, জেলা পর্যায়ে ৭৫ হাজার টাকা এবং উপজেলা পর্যায়ে ৫০ হাজার টাকা করা হবে।

১০১-২৪৯ শয্যার জন্য বেসরকারি হাসপাতাল ও ক্লিনিকের জন্য বিভাগ ও সিটি করপোরেশনে বার্ষিক ও নবায়ন ফি ১.৫ লাখ টাকা, জেলা পর্যায়ে এক লাখ টাকা এবং উপজেলা পর্যায়ে ৭৫ হাজার টাকা হবে।

বিভাগ এবং সিটি করপোরেশনের মধ্যে ২৫০ শয্যাবিশিষ্ট বেসরকারি হাসপাতালগুলোর বার্ষিক ও নবায়ন ফি দুই লাখ টাকা দিতে হবে। জেলা পর্যায়ে প্রস্তাবিত হার ১.৫ লাখ টাকা এবং উপজেলা পর্যায়ে এক লাখ টাকা।

অন্যদিকে, ‘এ’ ক্যাটাগরির ডায়াগনস্টিক ল্যাবরেটরি যাদের রুটিন প্যাথলজি, বায়োকেমিস্ট্রি, মাইক্রোবায়োলজি, হেমাটোলজি, এক্স-রে, আল্ট্রা-সনোগ্রাম, মাইক্রোবায়োলজি, ইমিউনোলজি, হরমোন টেস্ট, রেডিওলজি, ইমেজিং, সিটি স্ক্যান এবং এমআরআই রয়েছে তারা বর্তমানে লাইসেন্স ও নবায়ন ফি হিসেবে মাত্র এক হাজার টাকা দিচ্ছে।

এই ফি বিভাগ/ সিটি কর্পোরেশনে ৫০ হাজার টাকা, জেলায় ৪০ হাজার টাকা এবং উপজেলায় ২৫ হাজার টাকা করা হবে।

‘বি’ ক্যাটাগরির ডায়াগনস্টিক ল্যাবের জন্য এই হার হবে বিভাগ/ সিটি কর্পোরেশনে ৩৫ হাজার টাকা, জেলায় ২৫ হাজার টাকা এবং উপজেলায় ২০ হাজার টাকা।

‘সি’ ক্যাটাগরির ডায়গনস্টিক ল্যাবের জন্য এই হার হবে বিভাগ/ সিটি কর্পোরেশনে ২৫ হাজার টাকা, জেলায় ২০ হাজার টাকা এবং উপজেলায় ১৫ হাজার টাকা।

এদিকে বিদেশে যাওয়া ব্যক্তিদের চেক-আপ করার জন্য প্রতিষ্ঠিত মেডিকেল চেক-আপ সেন্টারগুলোর স্থাপন ও নবায়নের জন্য বর্তমান ফি এক হাজার টাকার পরিবর্তে এক  লাখ টাকা দিতে হবে।

ডেন্টাল ক্লিনিক স্থাপনের জন্য এই হার হবে বিভাগ/সিটি কর্পোরেশনে ৩০ হাজার টাকা, জেলায় ২৫ হাজার টাকা ও উপজেলার জন্য ২০ হাজার টাকা।

অর্থ মন্ত্রণালয়ের এক ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তার মতে, সরকার এই খাত থেকে রাজস্ব সংগ্রহ বৃদ্ধির লক্ষ্যে ৩৬ বছর পর বেসরকারি স্বাস্থ্য খাতে ফি বাড়ানোর পদক্ষেপ গ্রহণ করেছে।

এই বিভাগের আরো খবর

যেসব খাবারে মন মেজাজ ভালো থাকবে

ডেস্ক প্রতিবেদন: প্রায় প্রতিদিনই আমাদের জীবনে এমন কিছু হয় যাতে কিছুটা সময় মন কিংবা মেজাজ খারাপ থাকে। এতে করে ক্ষতিটা হয় কেবল নিজেরই, এমন সময়...

ব্রণ তাড়াতে পেঁয়াজের রস

ডেস্ক প্রতিবেদন:  পেঁয়াজের নানা গুণাগুণের কথা কম বেশি সবারই জানা। তবে ব্রণের সমস্যা দূর করতে পেঁয়াজের কার্যকারিতা সম্পর্কে অনেকেই জানেন...

বিয়ের আগে রূপচর্চা

ডেস্ক প্রতিবেদন: বিয়ের আগে নারীদের প্রচুর চাপ যায়। নতুন জীবন নিয়ে অতিরিক্ত চিন্তা, রাত জেগে থাকা, রোদে পুড়ে শপিং করার কারণে শরীর থেকে আয়রন,...

কান্নার সময়  সান্ত্বনা পেতে সুদর্শন পুরুষ খোঁজছে জাপানি মেয়েরা!

অনলাইন ডেস্ক: কোন কারণে চোখ দিয়ে পানি বেরোনোর আগেই কম্পিউটার বা ফোনের সামনে বসছেন জাপানি মেয়েরা। কারণ তার কান্নার সময় সান্ত্বনা দেওয়ার মতো...

0 মন্তব্য

আপনার মতামত প্রকাশ করুন

Message is required.
Name is required.
Email is