ঢাকা, সোমবার, ১৯ নভেম্বর ২০১৮, ৫ অগ্রহায়ণ ১৪২৫

2018-11-19

, ১০ রবিউল আউয়াল ১৪৪০

মাদকের রমরমা ব্যবসা রেল লাইনের ধারের বস্তিতে

প্রকাশিত: ১১:৩৪ , ০৫ সেপ্টেম্বর ২০১৮ আপডেট: ০৫:৫৮ , ০৫ সেপ্টেম্বর ২০১৮


নিজস্ব প্রতিবেদক: এক রহস্যময় অপরাধ জগত হিসেবে সমালোচিত রেলের ধার ঘেঁষে গড়ে ওঠা বস্তি। সারা দেশে মাদকের বড় অংশ পাচার হয় রেলপথে। চলন্ত ট্রেন থেকেই এসব মাদক আসে রেল লাইনের  ধারের বস্তিগুলোয়। রেল পুলিশ বলছে, লোকবলের অভাবে সব মাদক ধরতে পারে না। বস্তিবাসীরা বলছে, স্থানীয় প্রভাশালী ও পুলিশের ছত্রছায়ায় দিন-রাত চলে মাদকের রমরমা ব্যবসা।
রাজধারনীর কারওয়ান বাজার এলাকায় রেল লাইনের ধারের বস্তি। প্রকাশ্যে ক্যামেরা থাকলে সবাই লুকায়, ক্ষুব্ধ হয়। কিন্তু গোপন ক্যামেরায় দেখা যায়, এখানে খদ্দেরের জন্য ভর দুপুর বেলা অপেক্ষা  করছেন এক মাদক ব্যাবসায়ী। ইয়াবা বিক্রি করতে তা সেবনের জায়গা দিতেও সে প্রস্তুত। শুধু মাদকবিরোধী অভিযানের কারনে চালান কম, তাই দাম এখন বেশি। আবার অনেকের কাছে তাৎখনিক ইয়াবা না থাকায় পরে যোগাযোগ করবে বলে ফোন নম্বরও নেয়।
মাদক বাণিজ্যে এখানে তেমন বিশেষ রাখঢাক নেই। তার পেছনের কারণও বস্তিবাসীর জানা।  
অনেকে জানান, নিয়মিতই সন্ত্রাসীরা ধরা পড়ার ভয়ে রেল লাইনের ধারের বস্তি এলাকায় গা ঢাকা দেয়। বৈশাখী টিভির অনুসন্ধানে বেরিয়ে আসে, শুধু মাদক বাণিজ্র বা সন্ত্রাসীদের নিরাপদ আশ্রয় স্থলই নয়, রেলওয়ের জায়গা দখল করে ঘর বানিয়ে তা আড়াই থেকে তিনহাজার টাকায় ভাড়া দিয়ে বাণিজ্য করছে অনেকে।  
রেল পুলিশ বলছে, বিভিন্ন সময় কিছু পরিমাণে মাদক তারা জব্দ করে কিন্তু লোকবলের অভাবে অনেক কিছুই করতে পারে না।  
রেল মন্ত্রী জনবল সংকটের অজুহাত গ্রহণ করতে নারাজ। তিনি বিদ্যমান বাস্তবতায় পুলিশের কাঙ্খিত ভূমিকা চান।

 

এই বিভাগের আরো খবর

পোষ্টার ব্যানারে ছেয়ে গেছে ঢাকা ও ময়মনসিংহ বিভাগ

নিজস্ব প্রতিবেদক: ঢাকা বিভাগীয় নির্বাচনী আসন গুলোতে, হোক তা শহরে কিংবা প্রত্যন্ত অঞ্চলে, পোষ্টার ব্যানারে ছেয়ে গেছে এরই মধ্যে। কর্মব্যস্ত...

0 মন্তব্য

আপনার মতামত প্রকাশ করুন

Message is required.
Name is required.
Email is