ঢাকা, বৃহস্পতিবার, ২০ সেপ্টেম্বর ২০১৮, ৫ আশ্বিন ১৪২৫

2018-09-20

, ৯ মহাররম ১৪৪০

ভবিষ্যতে পূঁজিবাজার শক্তিশালী হবার সম্ভাবনা

প্রকাশিত: ০৯:১১ , ০২ সেপ্টেম্বর ২০১৮ আপডেট: ১২:৫৫ , ০২ সেপ্টেম্বর ২০১৮

নিজস্ব প্রতিবেদক: এখনও অনেক হতাশার চিত্র থাকলেও ভবিষ্যতে পূঁজিবাজার শক্তিশালী হবার সম্ভাবনা দেখছেন অনেকে। এর বড় কারণ হিসেবে, সম্প্রতি চীনের সাংহাই এবং সেনজেন স্টক এক্সচেঞ্জের সমন্বয়ে গঠিত কোম্পানি ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জের সাথে যৌথ অংশিদারিত্বে ব্যবসার চুক্তিকে বড় করে দেখছেন তারা। এতে আগামীতে শেয়ারবাজারে স্বচ্ছতা, জবাবদিহিতা বাড়বে বলে মনে করেন সংশ্লিষ্টরা।

ঋণের উৎস হিসেবে ব্যাংকিং খাতের তুলনায় শেয়ারবাজার বেশি লাভজনক। কিন্তু তারপরও বিনিয়োগকারীরা বিনিয়োগের অর্থ সংগ্রহ করেন ব্যাংক থেকে। আর্থিক খাত বিশ্লেষকরা বলছেন, ব্যাংকিং খাতে খেলাপী ঋণের অপসংস্কৃতি আর ঋণ খেলাপীদের বিচার না হওয়ায় অধিকাংশ বিনিয়োগকারী ব্যাংকমুখী, যার নেতিবাচক প্রভাব শেয়ার বাজারে।

সর্বাধুনিক প্রযুক্তির কারণে বাজারে না গিয়েও এখন প্রত্যন্ত গ্রামে বসেই একজন বিনিয়োগকারী মোবাইলের মাধ্যমে শেয়ার-কেনাবেচা করতে পারছেন।

তবে বিশ্লেষকরা বলছেন, বাজারের অবকাঠামোর উন্নতিই একমাত্র শর্ত নয়, ভাল মানের কোম্পানি আর বিনিয়োগের জন্য নতুন নতুন পণ্য না আনলে বাজারে উন্নতি হবে না। পাশাপাশি দুর্নীতি বন্ধ ও কাজে স্বচ্ছতা আনতে হবে।

বিশ্বের পূঁজিবাজারগুলো উন্নত, সম্ভবনাময়, প্রাথমিক স্তরের এবং কম উন্নতÑএই চার ভাগে মূল্যায়ন করা হয়। ১৯৫৬ সাল থেকে দেশে শেয়ার বাজার যাত্রা শুরু করলেও সম্ভবনাময় বাজার হয়ে উঠতে পারেনি এখনও, রয়ে গেছে প্রাথমিক স্তরের বাজারের পর্যায়ে।

ঢাকা শেয়ার বাজারের সাথে চীনের দুটি স্টক এক্সচেঞ্জের কৌশলগত অংশীদার হওয়ার কাজ প্রায় শেষ প্রান্তে। সাংহাই ও সেনজেন স্টক এক্সচেঞ্জ সমন্বিতভাবে ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জের ২৫ শতাংশ শেয়ার কিনে নেয়ার পাশাপাশি প্রযুক্তিগত সহায়তাও দেবে। বিদেশী কোম্পানির সংযুক্তিতে দেশের শেয়ার বাজার বাজার ঘুরে দাঁড়াবে এবং সম্ভবনাময় বাজারের কাতারে স্থান পাবে বলে আশায় বুক বাধছেন সংশ্লিষ্টরা।

বাজারে বিনিয়োগ প্রক্রিয়া এখনও সহজ নয়, রয়েছে জবাবদিহিতার ঘাটতি আর বিনিয়োগকারীদের জন্য নেই বৈচিত্রময় পণ্য। এগুলোতেও নজর চান সংশ্লিষ্টরা।

 

এই বিভাগের আরো খবর

জনপ্রিয় হয়ে উঠেছে সামাজিক ক্লাব প্রতিষ্ঠার চর্চা

নিজস্ব প্রতিবেদক: বিদেশি ভাষা হলেও ক্লাব বললেই সবাই এর অর্থ বোঝে। দেশে নানা ধরনের ক্লাব রয়েছে। যেমন- খেলার ক্লাব, সরকারি বেসরকারি বিভিন্ন...

চিংড়ি রপ্তানি মাত্র চারভাগের একভাগ, চাষে নেতিবাচক প্রভাব

নিজস্ব প্রতিবেদক: দেশে ৩৬ প্রজাতির চিংড়ি প্রকৃতিতে পাওয়া যায়। তার মধ্যে বাগদা ও গলদাসহ মাত্র পাঁচ প্রজাতির চিংড়ি চাষ করা সম্ভব হয়। চাষ থেকে...

দেশে পাঁচ প্রজাতির চিংড়ি চাষ, আধুনিকায়ন হলে বেশি উৎপাদন সম্ভব

নিজস্ব প্রতিবেদক: চিংড়ি চাষ খুব জটিল নয়, তবে নিরিড় পরিচর্যা দারুণ গুরুত্বপূর্ণ বিষয়। এইখানটায় দুর্বলতা চাষের চার দশকেও দূর করা যায়নি। তবে...

0 মন্তব্য

আপনার মতামত প্রকাশ করুন

Message is required.
Name is required.
Email is