ঢাকা, শুক্রবার, ২১ সেপ্টেম্বর ২০১৮, ৬ আশ্বিন ১৪২৫

2018-09-21

, ১০ মহাররম ১৪৪০

হাজারীবাগে আবারো দুর্গন্ধ-দূষণের দুর্ভোগ

প্রকাশিত: ০৯:৪৭ , ২৬ আগস্ট ২০১৮ আপডেট: ১০:২১ , ২৭ আগস্ট ২০১৮

নিজস্ব প্রতিবেদক : চামড়া প্রক্রিয়াজাতকরণের কাজ চলায় আবারো দূষণ ও দুর্গন্ধের শিকার হচ্ছেন রাজধানীর হাজারীবাগের বাসিন্দারা। নিষেধাজ্ঞা অমান্য করে এখানে কোরবানির পশুর চামড়া প্রক্রিয়াজাত করার কাজ চলায় এমনটি ঘটছে। বর্জ্যরে পানিতে বিষাক্ত হচ্ছে বুড়িগঙ্গার পানি। পরিবেশ ক্ষতিগ্রস্ত হওয়ার পাশাপাশি বাড়ছে স্বাস্থ্যঝুঁকি। এব্যাপারে প্রতিকারমূলক ব্যবস্থা নেয়ার দাবি জানালেন স্থানীয় বাসিন্দা ও পরিবেশবিদরা।

এভাবেই রাজধানীর হাজারীবাগ ও আশপাশের এলাকায় দূষণ ও দুর্গন্ধ সঙ্গী করেই চলছে জীবনযাপন। কাউকে দেখা গেলো নাক ঢেকে হাঁটতে। কেউবা দুর্গন্ধ এড়াতে দ্রুত ছুটছেন। নিষেধাজ্ঞা থাকলেও তা অমান্য করেই এখানে আসছে কোরবানির পশুর চামড়া। চলছে প্রক্রিয়াজাত করার কাজ। দূষিত হচ্ছে পরিবেশ। দুর্গন্ধ ছড়াচ্ছে চারপাশে।

হাজারীবাগ ঘুরে দেখা গেলো অনেক প্রতিষ্ঠানেরই সামনে তালা দেয়া। কিন্তু ভিতরে রাখা হয়েছে চামড়া। রাস্তার উপরও চলছে প্রক্রিয়াজাতকরণ। খোলা স্থানেই রাখা হয়েছে পশুর কান, দাঁত ও মাথারখুলি। এছাড়া, চামড়া প্রক্রিয়াজাত করার রাসায়নিক ও লবণ মেশানো পানি ড্রেন ও নালা হয়ে সরাসরি পড়ছে বুড়িগঙ্গা নদীতে।

এভাবেই নিরন্তর দূষণের শিকার হচ্ছে বুড়িগঙ্গা। পরিবেশবিদরা বলছেন, ট্যানারি পুরোপুরি স্থানান্তর করা না হলে রাজধানীর এই অংশের পরিবেশ ও জনস্বাস্থ্যের ঝুঁকি কমবে না।

পরিবেশবিদ ও স্থানীয়রা বলছেন, এখানকার পরিবেশ নতুন করে যেন দূষণের শিকার না হয় সে ব্যাপারে সতর্ক নজরদারি রাখা প্রয়োজন।

 

এই বিভাগের আরো খবর

বিভিন্নস্থানে নদী ভাঙন অব্যাহত

ডেস্ক প্রতিবেদন : উজান থেকে নেমে আসা পাহাড়ি ঢল ও বৃষ্টি অব্যাহত থাকায় বেড়েই চলেছে লালমনিরহাট জেলার তিস্তা ও ধরলা নদীর ভাঙন। কোনভাবেই ঠেকানো...

নদী ভাঙ্গনে বাগেরহাটে ঢাকা-পিরোজপুর মহাসড়ক অচল

বৈশাখী ডেস্ক: বাগেরহাটের মধুমতি নদীর বিভিন্ন স্থানে শুরু হয়েছে ভাঙন। এতে জেলার কলাতলা ইউনিয়নে ঢাকা-পিরোজপুর মহাসড়কে যান চলাচল বন্ধ রয়েছে।...

ঝুঁকিপূর্ণ ভবনে চলছে গাইবান্ধা উপজেলা পরিষদের কার্যক্রম

গাইবান্ধা প্রতিনিধি : ঝুঁকিপূর্ন প্রশাসনিক ভবনে চলছে গাইবান্ধা সদর উপজেলা পরিষদের কার্যক্রম। যেকোনো সময় ধসে পড়ার আশংকা থাকলেও, ঝুঁকি...

0 মন্তব্য

আপনার মতামত প্রকাশ করুন

Message is required.
Name is required.
Email is