ঢাকা, বুধবার, ২১ নভেম্বর ২০১৮, ৭ অগ্রহায়ণ ১৪২৫

2018-11-21

, ১২ রবিউল আউয়াল ১৪৪০

চাহিদা মিটিয়ে রপ্তানিও হচ্ছে দেশের আম

প্রকাশিত: ০৯:১৪ , ০৭ জুলাই ২০১৮ আপডেট: ১১:৩১ , ০৭ জুলাই ২০১৮

নিজস্ব প্রতিবেদক: দেশে প্রায় আটশ’ জাতের আম হয়। তবে দেশীয় এবং বৈজ্ঞানিক পদ্ধতিতে উদ্ভাবিত ২০ থেকে ২৫ জাতের আম বেশি পাওয়া যায় বাজারে। সিংহভাগ বাজার নিয়ন্ত্রণ করে রাজশাহী ও চাঁপাইনবাবগঞ্জের আম।  

আমের রাজধানী হিসেবে বৃহত্তর রাজশাহী অঞ্চলের পরিচিতি। এই মাটির আম দেশের মানুষের পছন্দের শীর্ষে, যদিও দেশের প্রতি জেলাতেই আম হয়।

আমের ফলন বাড়ানোর তাগিদ বেড়েছে বিগত কয়েক দশকে, তাই নতুন নতুন গবেষনা হাতে নেয়া হচ্ছে। আগাম, নাভি এবং বারো মাসি অর্থাৎ সারা বছর জুড়ে আম উৎপাদনের দিকেও বিশেষ গুরুত্ব দেয়া হচ্ছে।

দেশে আম উৎপাদনকারী জেলাগুলোর মধ্যে শীর্ষে চাঁপাইনবাবগঞ্জ। এ জেলার প্রায় ২৫ হাজার হেক্টর জমিতে আমের চাষ হয়।

এরপরেই রাজশাহী। তবে আশির দশক থেকে সাতক্ষীরা, রংপুর, চূয়াডাঙ্গা, মেহেরপুর, কুষ্টিয়া, ঝিনাইদহ, নাটোর, নঁওগাসহ দেশের বিভিন্ন জেলায় বাণিজ্যিকভাবে আম চাষ বি¯তৃত হয়েছে। এছাড়া, পাহাড়ী অঞ্চলগুলোতেও বেড়েছে আমের চাষ।

দেশীয় এবং বৈজ্ঞানিক জাতের এই আমগুলো বিভিন্ন জেলাতে উৎপন্ন হলেও এলাকাভেদে সুনাম রয়েছে নানান আমের। আমের বিশেষ আদিভূমি রাজশাহীতে সব ধরনের আমের চাষ হলেও ল্যাংড়া, ফজলি, আশ্বিনা, গোপালভোগ, এবং গোবিন্দভোগ আমের রয়েছে বিশেষ কদর। সাতক্ষীরার হিমসাগর আম প্রসিদ্ধ দেশ জুড়ে। এছাড়া রংপুরের হাড়িভাঙ্গা আমও স্বাদে গন্ধে মনভুলিয়ে দেয় ভোক্তাদের।

বুদ্ধিদীপ্ত জাতি তৈরিতে সবজি এবং মৌসুমি ফলের উপকারিতা বিশেষ গুরুত্বপূর্ণ। একারণে রসালো সুস্বাদু আমের উৎপাদন সারা বছর করার জন্যই সরকারি ও বেসরকারি পর্যায়ে  বিভিন্ন ধরনের গবেষণা এবং উদ্যোগ নেয়া হচ্ছে বলে জানান কৃষি কর্মকর্তারা।

 


 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

এই বিভাগের আরো খবর

পোষ্টার ব্যানারে ছেয়ে গেছে ঢাকা ও ময়মনসিংহ বিভাগ

নিজস্ব প্রতিবেদক: ঢাকা বিভাগীয় নির্বাচনী আসন গুলোতে, হোক তা শহরে কিংবা প্রত্যন্ত অঞ্চলে, পোষ্টার ব্যানারে ছেয়ে গেছে এরই মধ্যে। কর্মব্যস্ত...

0 মন্তব্য

আপনার মতামত প্রকাশ করুন

Message is required.
Name is required.
Email is