ঢাকা, মঙ্গলবার, ২০ নভেম্বর ২০১৮, ৬ অগ্রহায়ণ ১৪২৫

2018-11-20

, ১১ রবিউল আউয়াল ১৪৪০

রহস্যময় জল্লাদদের জীবন

প্রকাশিত: ০৯:০১ , ০৪ জুলাই ২০১৮ আপডেট: ০৪:২৩ , ০৪ জুলাই ২০১৮

নিজস্ব প্রতিবেদক: জল্লাদএকটি আতংকের নাম। আরবি এই শব্দের বাংলা অর্থ ঘাতক। আদালতের ফাঁসির রায় কারাগারে যাকে দিয়ে কার্যকর করে কর্তৃপক্ষ তারাই জল্লাদ বা ইংরেজিতে হ্যাংম্যান হিসেবে পরিচিত। অবশ্য কারাবিধিতে জল্লাদ বলে কোন শব্দ নেই। দেশের প্রতি কারাগরেই এক বা একাধিক জল্লাদ আছে। কারাগারের কয়েদিদের মধ্যে যারা জল্লাদ হবার যোগ্য তাদের মধ্যে থেকে বাছাই করে প্রশিক্ষণ দেয় প্রশিক্ষকরা। সেটা এক অজানা জগতের গল্প। জল্লাদদের জীবনটাও সাধারণের কাছে রহস্যময়।
ফাঁসিতে ঝুলিয়ে মৃত্যুদন্ড কার্যকরের প্রথা মধ্যযুগ থেকে। ভারতবর্ষে বৃটিশ শাসনামলে স্বাধীনতা আন্দোলনের বিপ্লবী মহানায়কদের ফাঁসিতে ঝুলিয়ে মৃত্যুদন্ড দেয়া হয়। সেই থেকে বিভক্ত ভারতবর্ষের তিন দেশে মৃত্যুদন্ড বহাল আছে। দেশে ফাঁসি কার্যকর যারা করে ঐতিহাসিকভাবে তাদের পরিচয় জল্লাদ।
অবশ্য কারাবিধি বা জেলকোডে জল্লাদ বলে কোন শব্দ নেই। দেশের কারা বিভাগের তথ্যমতে, ১৯৭৬ সাল থেকে ২০১৬ সাল পর্যন্ত ফাঁসি কার্যকর হয়েছে ৪৩৩ জনের। কারাগারগুলোতে ফাঁসির আসামি রয়েছে ১১৬৪ জন। দেশের প্রত্যেকটি কারাগারে রয়েছে একাধিক অভিজ্ঞ জল্লাদ।
শারিরিকভাবে সুস্থ, সাহসী, যার ফাঁসি কার্যকর করা হবে তার চেয়ে ওজন বেশি এবং দীর্ঘদিন কারাগারে আছেন এমন সাজাপ্রাপ্ত আসামীদের মধ্য থেকে প্রাথমিকভাবে জল্লাদ তৈরির জন্য বাছাই করা হয়। একটি ফাঁসি কার্যকর করলে একজন জল্লাদের তিন মাস কারাদন্ড কমে। এমন সুবিধা নিতে সাধারণত যাবজ্জীবন সাজাপ্রাপ্ত আসামীদের জল্লাদ হবার আগ্রহ থাকে বেশি।
১১ বছর ধরে দেশের বিভিন্ন কারাগারে জল্লাদ তৈরীর জন্য প্রশিক্ষকের দায়িত্ব পালন করছেন সিনিয়র জেল সুপার জাহাঙ্গীর কবির। তিনি জানান, প্রতিটি ফাঁসি কার্যকরের দশ থেকে পনেরো দিন আগে থেকে জল্লাদ ও  সহকারি জল্লাদকে হাতে কলমে ফাঁসি কার্যকরের প্রশিক্ষণ দেয়া হয়।
অতীতে দন্ডপ্রাপ্ত যুদ্ধাপরাধী ও বঙ্গবন্ধুর হত্যাকারিদের ফাঁসি কার্যকর করার জন্য কয়েকজন জল্লাদ আলোচিত হয়েছেন। এসব জল্লাদের মধ্যে বেশি সংখ্যক ফাঁসি কার্যকরকারী দুই জল্লাদ হলেন শাহজাহান এবং কালু।

এই বিভাগের আরো খবর

পোষ্টার ব্যানারে ছেয়ে গেছে ঢাকা ও ময়মনসিংহ বিভাগ

নিজস্ব প্রতিবেদক: ঢাকা বিভাগীয় নির্বাচনী আসন গুলোতে, হোক তা শহরে কিংবা প্রত্যন্ত অঞ্চলে, পোষ্টার ব্যানারে ছেয়ে গেছে এরই মধ্যে। কর্মব্যস্ত...

0 মন্তব্য

আপনার মতামত প্রকাশ করুন

Message is required.
Name is required.
Email is