ঢাকা, শুক্রবার, ২১ সেপ্টেম্বর ২০১৮, ৬ আশ্বিন ১৪২৫

2018-09-21

, ১০ মহাররম ১৪৪০

পাঁচ বছরে সরকারের সঞ্চয় স্কিমে বিনিয়োগ বেড়েছে ৬৭গুণ

প্রকাশিত: ০৩:০৪ , ২৬ জুন ২০১৮ আপডেট: ০৩:০৪ , ২৬ জুন ২০১৮

নিজস্ব প্রতিবেদক : আর্থিক সক্ষমতা বৃদ্ধির পাওয়ায় বাড়ছে মানুষের অর্থ সঞ্চয়ের প্রবণতা। গত পাঁচ বছরে সরকারের সঞ্চয় স্কিমগুলোতে মানুষের নীট বিনিয়োগ বেড়েছে ৬৭ গুণ। বর্তমানে সঞ্চয়পত্রের সুবিধাভোগীর সংখ্যা ২ কোটি হলেও সঞ্চয়ের দিক থেকে নারীরা এখনও পুরুষের তুলনায় পিছিয়ে।

জাতীয় সঞ্চয় অধিদপ্তরের পরিসংখ্যান বলছে, মানুষের সঞ্চয় করার প্রবণতা বাড়ছে। অধিদপ্তরের ১০টি সঞ্চয় স্কিম চালু রয়েছে। বাজেট ঘাটতি পূরণে এসব সঞ্চয়পত্র বিক্রি থেকে প্রতি বছর ঋণ নেয় সরকার। এসব সঞ্চয়পত্রে মানুষের বিনিয়োগ প্রতি বছরই বাড়ছে। ২০১২-১৩ থেকে ২০১৬-১৭ অর্থ বছর পর্যন্ত সঞ্চয় স্কিমগুলোতে মানুষের নীট বিনিয়োগ বেড়েছে ৬৭ গুণেরও বেশি।

ব্যাংকের আমানতের তুলনায় সঞ্চয়পত্রের সুদের হার বেশি, শেয়ার বাজার ও ব্যাংকের প্রতি অনাস্থা মানুষকে সঞ্চয়পত্র কেনার প্রতি আগ্রহী করে তুলছে বলে মনে করেন সংশ্লিষ্টরা।

বিষয়টিকে ইতিবাচক হিসেবে দেখছেন বাংলাদেশ ব্যাংকের সাবেক গভর্নর সালেহ উদ্দিন। সঞ্চয়পত্র বিক্রি বাড়লে সরকারের ব্যাংক ঋণের উপর নির্ভরশীলতা কমে, তাতে বেসরকারি খাতে ঋণপ্রবাহ বাড়ে বলে মনে করেন তিনি।

সঞ্চয়পত্রের উপকারভোগীর সংখ্যা প্রায় ২ কোটি হলেও মহিলাদের সঞ্চয় করার ক্ষেত্রে পুরুষের তুলনায় পিছিয়ে আছে বলে জানিয়েছে সঞ্চয় অধিদপ্তর।

বাংলাদেশের যে কোন বয়সের মানুষই সঞ্চয়পত্র কিনতে পারে। এজন্য সঞ্চয় অধিদপ্তরের নির্দিষ্ট অফিসের বাইরেও পোস্ট অফিস, বিভিন্ন তফসিলি ব্যাংক, বাংলাদেশ ব্যাংক থেকেও বেচা-কেনা করা যায়।

 

এই বিভাগের আরো খবর

নতুন ন্যূনতম মজুরি অন্যায্য : বিশ্লেষক ও শ্রমিক প্রতিক্রিয়া

নিজস্ব প্রতিবেদক: তৈরী পোশাক শ্রমিকদের ন্যূনতম মজুরি প্রায় ৫১ শতাংশ বাড়ানো হলেও একে জীবনযাত্রার ব্যয় বৃদ্ধির তুলনায় অপ্রতুল বলে মনে করছেন...

0 মন্তব্য

আপনার মতামত প্রকাশ করুন

Message is required.
Name is required.
Email is