ঢাকা, মঙ্গলবার, ১৯ ফেব্রুয়ারি ২০১৯, ৭ ফাল্গুন ১৪২৫

2019-02-19

, ১৩ জমাদিউস সানি ১৪৪০

ঘুরে আসুন বাংলার তাজমহল

প্রকাশিত: ০৪:৫০ , ০৯ মে ২০১৮ আপডেট: ০৫:০৭ , ০৯ মে ২০১৮

ডেস্ক প্রতিবেদন: মোঘল সম্রাট শাহজাহান তার স্ত্রীর প্রতি ভালোবাসার নিদর্শন স্বরূপ নির্মাণ করেন তাজমহল। এই তাজমহলকে ভালোবাসার প্রতীক হিসেবে বিবেচনা করা হয়। এটির আদলেই সোনারগাঁও উপজেলার সাদিপুর ইউনিয়নের পেরার নামক স্থানে তৈরি করা হয় বাংলার তাজমহল।
আগ্রার তাজমহল দেখার জন্য আর্থিক সামর্থ্য অনেকের না থাকায় বিশিষ্ট চলচ্চিত্রকার আহসান উল্লাহ মণি বাংলার তাজমহল নির্মাণ করেন। এটি নির্মাণ করতে প্রায় ৫ বছর সময় লেগেছে এবং প্রায় ৫৮ মিলিয়ন মার্কিন ডলার ব্যয় হয়েছে। এর নির্মাণে ইতালি থেকে আমদানিকৃত মার্বেল পাথর, বেলজিয়াম থেকে আমদানিকৃত হীরা ব্যবহার করা হয়েছে। এ ছাড়া ১৬০ কিলোগ্রাম ব্রোঞ্জ আমদানি করা হয় গম্বুজের জন্য।
দক্ষ প্রকৌশলী দিয়ে তৈরি করা হয় বাংলার তাজমহল। আগ্রার তাজমহলের মতোই রূপ দেওয়ার জন্য কয়েকবার আগ্রায় যেতে হয়েছে। বাংলার তাজমহলের প্রবেশমুখে ১০টি দৃষ্টিনন্দন ঝরনা রয়েছে। তাজমহলের ভেতরে রাজমণি ফিল্ম সিটি স্টুডিও রয়েছে। যে কেউ ইচ্ছে করলে সেখানে ছবি তুলতে পারবে। এ ছাড়া তাজমহলের ভেতরে বসার জায়গা রয়েছে। সবুজের সমারোহের মাঝে তাজমহল এক অপূর্ব সৌন্দর্য বহন করে।
বাংলার তাজমহলের পাশেই আরেক দর্শনীয় স্থান হলো পিরামিড। পৃথিবীর সপ্তাচার্যের অন্যতম একটি হলো মিশরের পিরামিড। সেই পিরামিডের আদলেই তৈরি করা হয় এই পিরামিড। এটি বাংলার তাজমহলের একটু পাশেই অবস্থিত। এই পিরামিড একনজর দেখলে চোখ জুড়িয়ে যাবে।

লাখ টাকা খরচ করে মিশরের পিরামিড দেখার যাদের সাধ্য নেই, তাদের জন্য এই পিরামিড। পিরামিডের ভেতরে ঢুকলেই আলো-আঁধারি কক্ষে চোখে পড়বে মিসরের ফেরাউনের সাতটি ডামি মমি। যেগুলো সুদূর মিসর থেকে আনা হয়েছে। ভুতুড়ে কক্ষের আরেকটু সামনে গেলে চোখে পড়বে রাজা-রানিদের পোশাক, অলংকার, তৈজসপত্র ও যুদ্ধে ব্যবহৃত বিভিন্ন উপকরণ। পিরামিডের পাশেই রয়েছে বিশাল হল রুম। সেখানে রয়েছে সিনেমা হল। মনোমুগ্ধকর পিরামিড আপনার স্মৃতিপটে দাগ কাটবে।

টিকেট মূল্য: বাংলার তাজমহল ও পিরামিডের টিকেট একত্রে মাত্র ৮০ টাকা।
যেভাবে যাবেন: গুলিস্থান থেকে বাসে করে মদনপুর বাস স্টপেজে নামবেন। সেখান থেকে সিএনজিযোগে পেরার নামক স্থানে বাংলার তাজমহলে যেতে পারবেন।

এই বিভাগের আরো খবর

প্রকৃতির নিস্বর্গ শিলং

ডেস্ক প্রতিবেদন: শিলং উত্তর-পূর্ব ভারতের মেঘালয় রাজ্যের রাজধানী। সমুদ্রপৃষ্ঠ থেকে ৪ হাজার ৯০৮ ফুট উচ্চতায় অবস্থিত শিলং-এ প্রচুর বৃষ্টিপাত...

অবসরে ঘুরে আসুন জিন্দা পার্ক

ডেস্ক প্রতিবেদন: নগর জীবনের যান্ত্রিক কোলাহল ছেড়ে একটুখানি শান্তির পরস পেতে কার  না মনে চায়। আর তাই একটুখানি শান্তির ছোঁয়া পেতে অবসরে...

মেঘলা পর্যটন কমপ্লেক্স 

ডেস্ক প্রতিবেদন: মেঘলা পর্যটন কমপ্লেক্স বান্দরবান জেলার প্রবেশ পথে বান্দরবান-কেরাণীহাট সড়কের পাশে পার্বত্য জেলা পরিষদ সংলগ্ন এলাকায়...

বান্দরবানের অন্যতম আকর্ষণ বগালেক

ভ্রমণ ডেস্ক: বগাকাইন লেক বা বগালেক বান্দরবান জেলার রুমা উপজেলা থেকে ১৭ কিলোমিটার দূরে কেওক্রাডং পাহাড়ের কোল ঘেসে সমুদ্রপৃষ্ট থেকে প্রায়...

0 মন্তব্য

আপনার মতামত প্রকাশ করুন

Message is required.
Name is required.
Email is