ঢাকা, বুধবার, ১৯ সেপ্টেম্বর ২০১৮, ৪ আশ্বিন ১৪২৫

2018-09-19

, ৮ মহাররম ১৪৪০

সফটওয়্যার খাতে কর্মসংস্থান হয়েছে পাঁচ লাখ মানুষের

প্রকাশিত: ১০:২৬ , ০৬ মে ২০১৮ আপডেট: ১০:১৮ , ০৬ মে ২০১৮

নিজস্ব প্রতিবেদক : দেশের সফটওয়্যারের অভ্যন্তরীণ বাজার প্রায় এক বিলিয়ন ডলারের আর বৈশ্বিক বাজার পাঁচ শত বিলিয়ন ডলারের। প্রযুক্তি খাতে গত বিশ বছরে উদ্যোক্তারা বিনিয়োগ করেছে প্রায় ছয় হাজার কোটি টাকা। প্রায় পাঁচ লক্ষ জনগোষ্ঠী এ খাতে যুক্ত থাকলেও দ্রুত লভ্যাংশ হাতে না আসায় এবং ঝুঁকিপূর্ণ হওয়ায় দেশের মূল ব্যবসায়ীরা এ খাতে বিনিয়োগে এখনও খুব একটা আগ্রহী নন।

ব্যাংক, গার্মেন্টস,ই-কমার্স ভিত্তিক ওয়েবসাইট তৈরিসহ সেবা খাতে দেশের সফটওয়্যার প্রতিষ্ঠানগুলোর কাজের পরিধি বাড়ছে। বেসিসের তথ্যমতে, এক হাজারের বেশি সফটওয়্যার প্রতিষ্ঠানে সরাসরি যুক্ত রয়েছে প্রায় দুই লক্ষ মানুষ আর দেশে বসে বিদেশের কাজের সমাধান দিচ্ছেন আরও প্রায় দুই লক্ষ মানুষ। গত দশ বছরে সফটওয়্যার তৈরি খাত এগিয়ে গেলেও অন্য দেশগুলোর তুলনায় তা অত্যন্ত ধীরগতির।

সফটওয়্যার তৈরিতে পারদর্শী প্রচুর মেধাবী তরুণ নিশ্চিত কর্মপরিবেশ না পাওয়ায় দেশের বাইরে পাড়ি জমিয়েছেন। বিশেষজ্ঞরা বলছেন বড় বিনিয়োগ করে মেধাবীদের দেশে রাখতে পারলে এ খাতের চিত্র আরও ভাল হতো। এছাড়া গত দুই দশকে শুধুমাত্র ঢাকাতেই সফটওয়্যারখাতে বিনিয়োগ হয়েছে প্রায় ছয় হাজার কোটি টাকা যার অধিকাংশ বিনিয়োগকারী প্রযুক্তিসংশি¬ষ্টরা। দেশের বড় শিল্পগোষ্ঠীকে এ খাতে এনে যথাযথ কর্ম পরিবেশ নিশ্চিতের তাগিদ দিলেন সংশ্লিষ্টরা।

শিক্ষা ব্যবস্থা যুগোপযুগী না হওয়ায় সফটওয়্যারখাতে দক্ষ জনশক্তি তৈরি একটা বড় চ্যালেঞ্জ বলে মনে করেন খাত সংশি¬ষ্টরা। দেশের সত্তর শতাংশ কর্মক্ষম মানুষের বয়স পঁয়ত্রিশ বছরের নিচে। ফলে সরকারী বেসরকারী উদ্যোগ সঠিক পথে পরিচালিত হলে সফটওয়্যারখাত তরুণ প্রজন্মকে অনুপ্রেরণা যোগাবে।

শুধুমাত্র বড় শহরগুলোতে ইন্টারনেটের গতি কিছুটা থাকলেও গ্রাম পর্যায়ে অবস্থার উন্নয়ন না ঘটলে সুফল পাওয়া কষ্টকর হবে বলে মনে করেন প্রযুক্তিবিদরা। ইন্টারনেট প্রান্তিক মানুষের কাছাকাছি পৌঁছে দেওয়া ও ক্রয়ক্ষমতার মধ্যে রাখাসহ অবকাঠামোগত উন্নয়নে কার্যকর পদক্ষেপ নেয়ার তাগিদ বিশেষজ্ঞদের।

আগামী দুই বছরে দেশের অভ্যন্তরীণ বাজারে তথ্য প্রযুক্তি খাতে আরও প্রায় তিন লক্ষ মানুষের কর্মসংস্থানের সুযোগ ঘটবে, এজন্য প্রয়োজন দক্ষ মানবশক্তি তৈরির পরিকল্পনা ও সঠিক বাস্তবায়ন।

 

এই বিভাগের আরো খবর

জনপ্রিয় হয়ে উঠেছে সামাজিক ক্লাব প্রতিষ্ঠার চর্চা

নিজস্ব প্রতিবেদক: বিদেশি ভাষা হলেও ক্লাব বললেই সবাই এর অর্থ বোঝে। দেশে নানা ধরনের ক্লাব রয়েছে। যেমন- খেলার ক্লাব, সরকারি বেসরকারি বিভিন্ন...

চিংড়ি রপ্তানি মাত্র চারভাগের একভাগ, চাষে নেতিবাচক প্রভাব

নিজস্ব প্রতিবেদক: দেশে ৩৬ প্রজাতির চিংড়ি প্রকৃতিতে পাওয়া যায়। তার মধ্যে বাগদা ও গলদাসহ মাত্র পাঁচ প্রজাতির চিংড়ি চাষ করা সম্ভব হয়। চাষ থেকে...

দেশে পাঁচ প্রজাতির চিংড়ি চাষ, আধুনিকায়ন হলে বেশি উৎপাদন সম্ভব

নিজস্ব প্রতিবেদক: চিংড়ি চাষ খুব জটিল নয়, তবে নিরিড় পরিচর্যা দারুণ গুরুত্বপূর্ণ বিষয়। এইখানটায় দুর্বলতা চাষের চার দশকেও দূর করা যায়নি। তবে...

0 মন্তব্য

আপনার মতামত প্রকাশ করুন

Message is required.
Name is required.
Email is