ঢাকা, শনিবার, ১৬ ফেব্রুয়ারি ২০১৯, ৪ ফাল্গুন ১৪২৫

2019-02-16

, ১০ জমাদিউল সানি ১৪৪০

তাজমহলে বেশি সময় থাকলে গুনতে হবে বাড়তি টাকা

প্রকাশিত: ০১:৫৭ , ২৯ মার্চ ২০১৮ আপডেট: ০১:৫৭ , ২৯ মার্চ ২০১৮

অনলাইন ডেস্ক: পৃথিবীর সপ্তম আশ্চর্যের অন্যতম একটি হচ্ছে আগ্রার তাজমহল। পৃথিবীর বহু দেশ থেকে প্রতিদিন হাজার হাজার দর্শনার্থী আসেন প্রেমের এই সৌধে। একবার টিকিট কেটে ঢুকে পড়লেই হল। তার পরে যতক্ষণ খুশি থাকা যেত সেখানে। কিন্তু ১ এপ্রিল থেকে তা আর সম্ভব হবে না বলে জানিয়ে দিয়েছে এএসআই (আর্কিওলজিকাল সার্ভে অফ ইন্ডিয়া)। ভিজিটরদের এবার থেকে তিন ঘণ্টার জন্য তাজে প্রবেশাধিকার থাকবে। তবে কেউ যদি বেশি সময় কাটাতে চান, সে ক্ষেত্রে বাড়তি টাকা দিতে হবে।

চলতি সপ্তাহেই এএসআই-এর তরফ থেকে একটি বিজ্ঞপ্তি জারি করা হয়েছে এই মর্মে। সংস্থার এক আধিকারিক জানিয়েছেন যে, এই পদ্ধতি কী ভাবে কার্যকর করা হবে, তা এখনও ঠিক করা হয়নি। তবে, এই মুহূর্তে দু’টি পদ্ধতি ভেবেছেন তাঁরা। তিন ঘণ্টা শেষ হয়ে গেলে আবারও নতুন করে টিকিট কাটতে হবে পর্যটকদের। অথবা, তিন ঘণ্টার বেশি থাকলে ঘণ্টা হিসেবে টাকা নেওয়া হতে পারে।

এএসআই-এর তরফ থেকে জানানো হয়েছে, তাজ মহল দর্শনে পর্যটকদের ভিড় সামলানোর জন্যই বাড়তি টাকা নেওয়ার পরিকল্পনা করা হয়েছে। এমন দিনও গেছে, যখন তাজ চত্বরে একসঙ্গে ৫০ হাজারেরও বেশি মানুষের ঢল ছিল। অনেক মানুষই এমন রয়েছেন যাঁরা প্রায় একটা গোটা দিন কাটিয়ে দেন এই প্রেমের সৌধে। বেশি ভিড় হলে তা সামলাতেও সমস্যা হয়। উপরন্তু, সবাই ভালভাবে তাজ দর্শনও করতে পারেন না।

প্রসঙ্গত, বর্তমানে তাজ দর্শনের খরচ ভারতীয়দের জন্য মাত্র ৪০ রুপি। সার্ক দেশের পর্যটকদের জন্য তাজের প্রবেশমূল্য ৫৩০ রুপি। আর বিশ্বের অন্য দেশের নাগরিকদের জন্য তা ১ হাজার রুপি। ১ এপ্রিল থেকে এই মূল্যই থাকবে, নাকি বেড়ে যাবে তা নিয়ে কিছু জানায়নি এএসআই-এর তরফ থেকে। তবে, পৃথিবীর সপ্তম আশ্চর্যের অন্যতম তাজকে দেখতে কোনও মূল্যই যে বাধা হবে না তার প্রমাণ পাওয়া যাবে আগামী মাস থেকেই, এমনটাই মনে করছেন সংস্থার আধিকারিকরা।

এই বিভাগের আরো খবর

প্রকৃতির নিস্বর্গ শিলং

ডেস্ক প্রতিবেদন: শিলং উত্তর-পূর্ব ভারতের মেঘালয় রাজ্যের রাজধানী। সমুদ্রপৃষ্ঠ থেকে ৪ হাজার ৯০৮ ফুট উচ্চতায় অবস্থিত শিলং-এ প্রচুর বৃষ্টিপাত...

অবসরে ঘুরে আসুন জিন্দা পার্ক

ডেস্ক প্রতিবেদন: নগর জীবনের যান্ত্রিক কোলাহল ছেড়ে একটুখানি শান্তির পরস পেতে কার  না মনে চায়। আর তাই একটুখানি শান্তির ছোঁয়া পেতে অবসরে...

মেঘলা পর্যটন কমপ্লেক্স 

ডেস্ক প্রতিবেদন: মেঘলা পর্যটন কমপ্লেক্স বান্দরবান জেলার প্রবেশ পথে বান্দরবান-কেরাণীহাট সড়কের পাশে পার্বত্য জেলা পরিষদ সংলগ্ন এলাকায়...

বান্দরবানের অন্যতম আকর্ষণ বগালেক

ভ্রমণ ডেস্ক: বগাকাইন লেক বা বগালেক বান্দরবান জেলার রুমা উপজেলা থেকে ১৭ কিলোমিটার দূরে কেওক্রাডং পাহাড়ের কোল ঘেসে সমুদ্রপৃষ্ট থেকে প্রায়...

ঘুরে আসুন মাধবপুর লেক

ডেস্ক প্রতিবেদন: মাধবপুর লেক বা হ্রদটি মৌলভীবাজার জেলার কমলগঞ্জ উপজেলার মাধবপুর ইউনিয়নে অবস্থিত। কমলগঞ্জ উপজেলা সদরে থেকে মাধবপুর লেকের...

0 মন্তব্য

আপনার মতামত প্রকাশ করুন

Message is required.
Name is required.
Email is