ঢাকা, শনিবার, ২২ সেপ্টেম্বর ২০১৮, ৭ আশ্বিন ১৪২৫

2018-09-22

, ১১ মহাররম ১৪৪০

নির্মাণকাজের উদ্বোধন করবেন প্রধানমন্ত্রী

রূপপুর পারমাণবিক বিদ্যুত কেন্দ্রের উদ্বোধন কাল

প্রকাশিত: ০৮:১২ , ২৯ নভেম্বর ২০১৭ আপডেট: ০৮:১২ , ২৯ নভেম্বর ২০১৭

নিজস্ব প্রতিবেদক: পাবনার রূপপুরে পারমাণবিক বিদ্যুত কেন্দ্রের উদ্বোধনের মাধ্যমে আনুষ্ঠানিকভাবে নিউক্লিয়ারে ক্লাবে যুক্ত হচ্ছে বাংলাদেশ। বৃহস্পতিবার দেশের ইতিহাসের সবচেয়ে ব্যয়বহুল এই বিদ্যুৎ কেন্দ্রের মূল নির্মাণকাজের উদ্বোধন করবেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। রাশিয়ার রাষ্ট্রীয় আণবিক শক্তি কর্পোরেশন-রসাটমের অঙ্গ প্রতিষ্ঠান এএসই গ্র“প অব কোম্পানিজ এই প্রকল্প বাস্তবায়ন করছে।

স্বাধীনতার আগে ১৯৬১ সালে পাবনার রূপপুরে পারমাণবিক বিদ্যুৎকেন্দ্র স্থাপনের প্রথম উদ্যোগ নেয়া হলেও তা আর আলোর মুখ দেখেনি। পরবর্তীতে ২০০৯ সালে আওয়ামী লীগ সরকার ক্ষমতায় আসলে বিদ্যুত কেন্দ্রটি নির্মাণের সিদ্ধান্ত নেয়। সেই অনুযায়ী ২০১১ সালের নভেম্বরে রাশিয়ার সঙ্গে সহযোগিতা চুক্তি সই হয়। যার ধারাবাহিকতায় ২০১৩ সালে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা রাশিয়া সফরকালে পারমানবিক বিদ্যুত কেন্দ্র নির্মাণের জন্য চুক্তি সই করেন। চুক্তি অনুযায়ি বিদ্যুত কেন্দ্রটি নির্মাণের জন্য প্রয়োজনীয় ব্যয়ের ৯০ শতাংশই ঋণ হিসেবে দেবে রাশিয়া।

২০১৩ সালে শুরু হয় পারমাণবিক বিদ্যুত কেন্দ্রটির নির্মাণ কাজ। আগামী বৃহস্পতিবার এই বিদ্যুৎ প্রকল্পের মূল স্থাপনা ‘রিঅ্যাক্টর বিল্ডিং’ বা উৎপাদন কেন্দ্রের নির্মাণ কাজের উদ্বোধন করবেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি মন্ত্রী স্থপতি ইয়াফেস ওসমান জানালেন, আন্তর্জাতিক সব মানদণ্ড মেনেই চলছে এর নির্মাণ কাজ। পারমাণবিক এই বিদ্যুৎ প্রকল্পে ২৪শ’ মেগাওয়াট ক্ষমতা সম্পন্ন সর্বাধুনিক দুটি বিদ্যুৎ ইউনিট থাকবে। ২০২৩ সালের মধ্যে প্রথম ইউনিট থেকে মিলবে ১২শ’ মেগাওয়াট বিদ্যুত।  

ব্যয়বহুল এই বিদ্যুত কেন্দ্রটিতে থাকছে পাঁচ স্তরের নিরাপত্তা বিশিষ্ট ভিভিইআর প্রযুক্তি। আর, আট মাত্রার ভূমিকম্প সহনীয় দু’টি চুল্লি¬তে থাকবে তিন স্তরের নিরাপত্তা। মন্ত্রী স্থপতি ইয়াফেস ওসমান জানান, চুক্তি অনুযায়ী পারমাণবিক বিদ্যুত কেন্দ্রের বর্জ্য নিয়ে যাবে রাশিয়া।

প্রকল্প সংশ্লিষ্টরা আশ্বস্ত করলেন, আধুনিক ও সর্বাধিক নিরাপদ প্রযুক্তি ব্যবহার করেই নির্মাণ করা হচ্ছে দেশের প্রথম এই পারমাণবিক বিদ্যুত কেন্দ্রটি। থাকছে সাশ্রয়ী ও পরিবেশবান্ধব পারমাণবিক প্রযুক্তির ব্যবহার।

 

এই বিভাগের আরো খবর

গ্যাস বেলুনে হিলিয়ামের পরিবর্তে ব্যবহার হচ্ছে হাইড্রোজেন গ্যাস

নিজস্ব প্রতিবেদক: বিপজ্জনক ও বিস্ফোরক হাইড্রোজেন গ্যাস দিয়ে বেলুন ফুলিয়ে উড়ানো হচ্ছে বিভিন্ন অনুষ্ঠানে। নানা উৎসবে শিশুদের হাতে হাতে...

তিনমাসের মধ্যেই কাজ শুরু

ঢাকার নদী-খাল দূষণমুক্ত ও নাব্যতা বৃদ্ধির উদ্যোগ

নিজস্ব প্রতিবেদক: এবার ঢাকার আশপাশের নদী ও খাল দূষণমুক্ত ও নাব্যতা বৃদ্ধির উদ্যোগ নিয়েছে সরকার। এজন্য প্রায় ২৫ হাজার কোটি টাকার একটি...

পরিবেশ বান্ধব করার তাগিদ

কাগজ শিল্পে আসছে নতুন নতুন প্রকল্প 

নিজস্ব প্রতিবেদক: বিক্রির পরিমাণ হিসেবে দেশে প্রতিদিনের কাগজের বাজার প্রায় চার হাজার মেট্রিক টনের। টাকার অংকে যার পরিমাণ প্রায় আটাশ কোটি...

0 মন্তব্য

আপনার মতামত প্রকাশ করুন

Message is required.
Name is required.
Email is