ঢাকা, শনিবার, ২০ জুলাই ২০১৯, ৫ শ্রাবণ ১৪২৬

2019-07-19

, ১৬ জিলকদ ১৪৪০

মুখ্যমন্ত্রী যোগীর বিরুদ্ধে কবিতা লিখে ফেঁসে গেলেন কবি শ্রীজাত

প্রকাশিত: ১০:৪৬ , ২৪ মার্চ ২০১৭ আপডেট: ১০:৪৬ , ২৪ মার্চ ২০১৭

ডেস্ক রিপোর্ট: গত ২১ মার্চ ছিলো বিশ্ব কবিতা দিবস। আর তার দুদিন আগে, ১৯ মার্চ ফেসবুকে একটা কবিতা পোস্ট করে ফেঁসে গেলেন ভারতের পশ্চিমবঙ্গের কবি শ্রীজাত বন্দ্যোপাধ্যায়। 

কবি শ্রীজাতের কবিতা ধর্মীয় ভাবাবেগে আঘাত করেছে, এই অভিযোগে এফআইআর দায়ের হয়েছে তাঁর বিরুদ্ধে। কবির কিন্তু তাতে কোনো অনুশোচনা নেই।

গত ১৯ মার্চ শনিবার সন্ধ্যায় ফেসবুকে ‘অভিশাপ’ নামে একটি কবিতা পোস্ট করেন শ্রীজাত। এর পর গত ২১ মার্চ সোমবার রাতে তাঁর বিরুদ্ধে হিন্দু ধর্মাবেগে আঘাত করার অভিযোগ তুলে শিলিগুড়ির সাইবার ক্রাইম পুলিশ স্টেশনে অভিযোগ দায়ের করে অর্ণব সরকার নামে এক কলেজছাত্র।

শিলিগুড়ির পুলিশ কমিশনার চেলিং সিমিক লেপচা জানান, অভিযোগ জমা পড়েছে। তদন্ত হচ্ছে। এখনও কোনো মামলা করা হয়নি।

স্থানীয় বাসিন্দাদের দাবি, অভিযোগকারী অর্ণব ‘হিন্দু সংহতি’ নামে একটি অরাজনৈতিক সংগঠনের সদস্য। যে-কবিতা নিয়ে বিতর্ক, সেটি মূলত উত্তরপ্রদেশে বিধানসভা ভোটের ফল এবং তার পর যোগী আদিত্যনাথ মুখ্যমন্ত্রী হওয়া প্রসঙ্গে লেখা। ওই ব্যক্তি শ্রীজাতকে গ্রেপ্তারের দাবিও জানিয়েছে। কবিতাটির শেষ দুটি লাইন নিয়েই তার মূল আপত্তি। সেখানে শ্রীজাত লিখেছেন, "আমাকে ধর্ষণ করবে যদ্দিন কবর থেকে তুলে / কন্ডোম পরানো থাকবে তোমার ওই ধর্মের ত্রিশূলে।" 

শ্রীজাতের লেখা কবিতা নিয়ে যা হল, যেভাবে তাঁকে হুমকি দেওয়া হল, তার জন্য  সরাসরি বিজেপিকেই দায়ী করলেন তৃণমূল নেত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। সঙ্গে আশ্বাস, ওঁর কিছুই হবে না। আমি পাশে আছি। 

গতকাল বৃহস্পতিবার এবিপি আনন্দকে দেওয়া সাক্ষাৎকারে কবি শ্রীজাতের পক্ষ নিয়ে মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় বলেন, ‘‘শ্রীজাতকে খুব বাজে হুমকি দেওয়া হচ্ছে। একটা রাজনৈতিক দল এটা করছে, যারা গোটা দেশে গৈরিকীকরণ শুরু করে দিয়েছে। কেন্দ্রে ক্ষমতায় রয়েছে বলে ওরা মনে করছে যেন গোটা পৃথিবীর দখল নিয়ে ফেলেছে! কিন্তু আমি বলব, ভয় পাবেন না। ভয় পাওয়ার কোনো কারণ নেই। আমি নিজে এটা দেখবো। শ্রীজাতের কিছুই হবে না। যেখানে-সেখানে দাঙ্গা ছড়ানোর চেষ্টা হলে পুলিশ ব্যবস্থা নেবে। কিন্তু একজন একটা কবিতা লিখেছেন বলে তাঁর বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নিতে হবে, এটা কখনও হবে না। আমি শ্রীজাতকে নিয়ে পুলিশকে অবিলম্বে রিপোর্ট দিতে বলেছি।’’ 

এ প্রসঙ্গে শ্রীজাত নিজে সংবাদ মাধ্যমে জানিয়েছেন, তিনি তাঁর নিজের বিশ্বাস ও প্রতিবাদের অবস্থান থেকেই এই পোস্টটি করেছিলেন। যা নিয়ে তাঁর কোনোরকম অনুশোচনাই নেই।

তিনি বলেন, ‘‘ঘটনাটি দু্র্ভাগ্যজনক এবং হাস্যকর। ধর্ম কি এতটাই ঠুনকো বা সহজ যে, ধর্মকে এত সহজে আঘাত করা যায়?  মনে হয় না। আমার যদি মনে হয় কোনো ঘটনার বিরোধিতা করা জরুরি, তা হলে তা সপাটেই করি। আমার প্রতিবাদের ভাষা কবিতা। সেই কারণে কবিতার মাধ্যমে প্রতিবাদ জানিয়েছি।’’

একই সঙ্গে কবি জানান, ভারতবর্ষের সার্বভৌমত্বের উপর তাঁর আস্থা রয়েছে। সকলেরই গণতান্ত্রিক ভাবে মত প্রকাশের অধিকার আছে বলেও তিনি মনে করেন।

বিতর্কিত কবিতাটি সহ শ্রীজাত বন্দ্যোপাধ্যায়ের ফেসবুক পৃষ্ঠাটি নিচে তুলে ধরা হলো-- 

 

এই বিভাগের আরো খবর

চীনের ঐতিহ্যবাহী কুনকু থিয়েটার

বিনোদন ডেস্ক: সাংস্কৃতিক ঐতিহ্যের খ্যাতির উচ্চসীমানায় চীনের নাম উচ্চারিত হলেই মাথায় আসবে দেশটির মহাপ্রাচীর, খাবার, চিত্রকলা, মার্শাল...

0 মন্তব্য

আপনার মতামত প্রকাশ করুন

Message is required.
Name is required.
Email is