ঢাকা, বৃহস্পতিবার, ২০ সেপ্টেম্বর ২০১৮, ৫ আশ্বিন ১৪২৫

2018-09-20

, ৯ মহাররম ১৪৪০

কবি জীবনানন্দ দাশ’এর ৬৩তম মৃত্যুবার্ষিকী আজ

প্রকাশিত: ১০:১২ , ২২ অক্টোবর ২০১৭ আপডেট: ১০:১২ , ২২ অক্টোবর ২০১৭

ডেস্ক প্রতিবেদন: বাংলা সাহিত্যের অন্যতম শীর্ষ কবি জীবনানন্দ দাশ’এর ৬৩তম মৃত্যুবার্ষিকী আজ ২২ অক্টোবর। তিনি শুদ্ধতম ও রুপসী বাংলার কবি হিসেবে সমধিক পরিচিত ছিলেন।

বিশ্ব কাব্য সািহত্যের এক অসাধারণ মেধাবী এই বাঙালি কবি কলকাতায় ট্রাম দুর্ঘটনায় আহত হয়ে হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় ১৯৫৪ সালের ২২ অক্টোবর মারা যান। তার জন্ম বাংলাদেশের বরিশালে ১৯৯৯ সালের ১৭ ফেব্র“য়ারি। তাদের পূর্বপুরুষ বিক্রমপুরে বসবাস করতেন। তার মা কবি কুসুম কুমারী দাশ ও পিতার নাম সত্যনানন্দ দাশ।

কবি ব্রজমোহন স্কুল থেকে এসএসসি, ব্রজমোহন কলেজ থেকে এইচএসসি, প্রেসিডেন্সি কলেজ ও কলকাতা বিশ্ববিদ্যালয় থেকে বিএ ও ইংরেজি সাহিত্যে স্নাতকোত্তর ডিগ্রি লাভ করেন তিনি। পেশাগত জীবনে কবি প্রথম অধ্যাপনা শুরু করেন ১৯২২ সালে কলকাতা সিটি কলেজে। এর পর পর্যায়ক্রমে দিল্লীর রামযশ কলেজ, ব্রজমোহন কলেজ, বাগেরহাট কলেজ, হাওড়া গার্লস কলেজ, খড়গপুর কলেজে অধ্যাপনা করেন। কলকাতা বিশ্ববিদ্যালয়ে অধ্যয়নকালে তিনি বরিশাল ত্যাগ করেন। পেশাগত জীবনে নানা কারণে কবিকে একটার পর একটা কলেজ থেকে বিদায় নিয়ে শিক্ষকতা করতে হয়। বোহেমিয়ান জীবন ছিল তার। মৃত্যুর আগ পর্যন্ত কবি কলকাতার হাওড়া কলেজে অধ্যাপনা করছিলেন।

বিংশ শতাব্দীর অন্যতম শক্তিশালী এই লেখক একাধারে কবি, অধ্যাপক, প্রাবন্ধিক, গল্পকার, উপন্যাসিক, গীতিকার ছিলেন। স্কুল জীবনেই কবি জীবনানন্দ দাশ বাংলা ও ইংরেজিতে লেখালেখি শুরু করেন। তার প্রথম কবিতা ‘বর্ষ ’ ১৯১৯ সালে ‘ব্রাক্ষèদী ’ পত্রিকায় প্রকাশ পায়। তার কবিতা বাংলার রূপ, প্রকৃতি, মানুষের জীবনধারা, মাটি, তাদের কর্ম, দু:খ-কষ্ট, বৃটিশ শাসনবিরোধী, স্বাধীনতার আকাংখা উঠে এসেছে। কবিতা নির্মিতিতে ভিন্ন আঙ্গিকে, ভাষাগতভাবে পূরাণকে সর্বোচ্চ মর্যাদা দিয়েছিলেন তিনি। রবীন্দ্রত্তোর কবিতায় তার মতো ভিন্নভাবে সৃষ্টিশীলতা আর কারও মধ্যে কাজ করেনি। মৃত্যুর আগ পর্যন্ত কবি ততটা জনপ্রিয়তা না পেলেও মৃত্যুর পর তার সৃষ্টিশীলতাই তাকে শ্রেষ্ট কবির মর্যাদায় অধিষ্ঠিত করে।

জীবনানন্দ দাশের প্রথম কবিতার বই ‘ ঝরা পালক’ প্রকাশ পায় ১৯২৭ সালে। কলেজ জীবন থেকে তার লেখা নানা পত্রিকায় প্রকাশ পেতে থাকে। তার প্রকাশিত অন্যান্য কাব্যগ্রন্থ হচ্ছে, ধূসর পান্ডুলিপি (১৯২৭), বনলতা সেন (১৯৪২), মহাপৃথিবী (১৯৪৪), সাতটি তারার তিমির (১৯৪৮), জীবনানন্দ দাশের শ্রেষ্ঠ কবিতা (১৯৫৪), রুপসী বাংলা (১৯৫৭), বেলা অবেলা কালবেলার কবিতা (১৯৬১), সুদর্শনা (১৯৭৬), আলো পৃথিবী (১৯৮১), মনোবিহঙ্গম, প্রেম তোমার কথা ভেবে (১৯৯২)। গল্পগ্রন্থ ‘জীবনানন্দ দাশের গল্প (১৯৭২), চারজন (২০০৪), শ্রেষ্ঠ গল্প (১৯৭৩)। এ ছাড়া কবির একটি প্রবন্ধ গ্রন্থ প্রকাশ পায়।

সাহিত্যে বিশেষ অবদানের জন্য কবি রবীন্দ্র স্মৃতি পুরস্কার (১৯৫২), সাহিত্য একাডেমি পুরস্কার (১৯৯৫) সহ অন্যান্য পুরস্কার লাভ করেন।

 

এই বিভাগের আরো খবর

বীরাঙ্গনা রমা চৌধুরী আর নেই

চট্টগ্রাম প্রতিনিধি : না ফেরার দেশে চলে গেলেন একাত্তরের জননী খ্যাত লেখিকা রমা চৌধুরী। সোমবার ভোর ৪টার দিকে চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজ...

এশীয় চারুকলা প্রদর্শনী আজ উদ্বোধন করবেন রাষ্ট্রপতি 

নিজস্ব প্রতিবেদক: আজ শনিবার দুপুরে ১৮তম দ্বি-বার্ষিক এশীয় চারুকলা প্রদর্শনীর উদ্বোধন করবেন রাষ্ট্রপতি আবদুল হামিদ। রাজধানীর শিল্পকলা...

0 মন্তব্য

আপনার মতামত প্রকাশ করুন

Message is required.
Name is required.
Email is