ঢাকা, সোমবার, ১৮ ফেব্রুয়ারি ২০১৯, ৬ ফাল্গুন ১৪২৫

2019-02-18

, ১২ জমাদিউস সানি ১৪৪০

ঘুরে আসুন ‌'সোয়াচ অব নো গ্রাউন্ড'

প্রকাশিত: ০৪:১১ , ১৭ অক্টোবর ২০১৭ আপডেট: ০৪:১১ , ১৭ অক্টোবর ২০১৭

ডেস্ক প্রতিবেদন: সোয়াচ অফ নো গ্রাউন্ড! বঙ্গোপসাগরে অবস্থিত পৃথিবীর অন্যতম গভীরতম খাদ। চাইলে আপনিও ঘুরে আসতে পারেন সোয়াচ অফ নো গ্রাউন্ড। একসঙ্গে দেখে আসতে পারেন ইরাবতী ডলফিল, ইমপ্ল­াস ডলফিন ও ইন্দো-প্যাসিফিক ডলফিন। এমনকি দেখা মিলতে পারে তিমিরও।

ইতিহাস

বঙ্গোপসাগরের তলায় প­াইসটোসিন যুগে (প্রায় ১,২৫,০০০ বছর আগে) তৈরি হয় গভীর উপত্যকা বা মেরিন ভ্যালি। এর নাম সোয়াচ অফ নো গ্রাউন্ড দেয় ব্রিটিশরা। বিশ্বের অন্যতম ১১টি গভীর খাদগুলোর মধ্যে সোয়াচ অফ নো গ্রাউন্ড অন্যতম। গভীরতম এই উপত্যকার আয়তন প্রায় ১৩৪০ মিটার। এই ডুবো গিরিখাত বঙ্গ পাখার অংশ, যা বিশ্বের বৃহত্তম ডুবো গিরিখাত।

অবস্থান

সোয়াচ অফ নো গ্রাউন্ড শুরুর স্থান থেকে পানির গভীরতা হঠাৎ করেই অনেক বেশি। এর অবস্থান সুন্দরবনের দুবলার চর থেকে প্রায় ৪০ কিলোমিটার দূরে। বঙ্গোপসাগরে প্রায় ৩,৮০০ বর্গ কিলোমিলোমিটার এলাকা জুড়ে। এর তলদেশে রয়েছে কাদা মোশানো বালি যার ঘনত্ব প্রায় ১৬ কিলোমিটার। পানির রং সম্পূর্ণ আলাদা, যা দেখেই সোয়াচ অফ নো গ্রাউন্ডের এলাকায় বুঝা যায়।

এই জায়গাকে জেলেরা ‘নাই বাম’ বলেও ডাকে। কারন তারা বাঁশের হিসাব ‘বাম’ অনুযায়ী সাগরের হিসাব করে। এই স্থানের কোনো হিসাব তাদের কাছে না থাকায় ‘নাই বাম’ বলে ডাকে।
 
যা দেখবেন

সোয়াচ অফ নো গ্রাউন্ডে প্রচুর মাছ পাওয়া যায়। তবে, এটি সামুদ্রিক প্রাণীর অভয়ারণ্য। এখানে তিমি, ডলফিন, পপাস, ইরাবতী ডলফিল, ইমপ­াস ডলফিন, ইন্দো-প্যাসিফিক ডলফিন পাওয়া যায়। সোয়াচ অফ নো গ্রাউন্ড পৃথিবীর একমাত্র জায়গা যেখানে ইরাবতী ডলফিল, ইমপ­াস ডলফিন, ইন্দো-প্যাসিফিক ডলফিন একসঙ্গে দেখা যায়।

কথিত আছে, ১৮৬৩ সালে গ্যাডফ্লাই নামে একটা ২১২ টন ওজন বিশিষ্ট গানবোট ভারত থেকে ইংল্যান্ডে বিপুল পরিমাণ ধনরত্ন নিয়ে যাওয়ার সময় ঝড়ের কবলে পড়ে ডুবে যায়।

কীভাবে যাবেন

ঢাকা থেকে সরাসরি মংলা। সেখান থেকে প্রতিদিনই মাছ ধরার ট্রলার যায় সোয়াচ অব নো গ্রাউন্ডে। জেলেদের সাথে কথা বলে ওঠে যেতে পারেন যে কোনো ট্রলারে। সোয়াচ অব নো গ্রাউন্ডের নির্দিষ্ট এলাকায় রাতে মাছ ধরার ট্রলারগুলো অবস্থান করে। চাইলে রাত কাটিয়ে আসতে পারেন। তবে ট্রলার ঠিক করার আগে বিস্তারিত কথা বলে নিতে ভুলবেন না।

 

 

এই বিভাগের আরো খবর

প্রকৃতির নিস্বর্গ শিলং

ডেস্ক প্রতিবেদন: শিলং উত্তর-পূর্ব ভারতের মেঘালয় রাজ্যের রাজধানী। সমুদ্রপৃষ্ঠ থেকে ৪ হাজার ৯০৮ ফুট উচ্চতায় অবস্থিত শিলং-এ প্রচুর বৃষ্টিপাত...

অবসরে ঘুরে আসুন জিন্দা পার্ক

ডেস্ক প্রতিবেদন: নগর জীবনের যান্ত্রিক কোলাহল ছেড়ে একটুখানি শান্তির পরস পেতে কার  না মনে চায়। আর তাই একটুখানি শান্তির ছোঁয়া পেতে অবসরে...

মেঘলা পর্যটন কমপ্লেক্স 

ডেস্ক প্রতিবেদন: মেঘলা পর্যটন কমপ্লেক্স বান্দরবান জেলার প্রবেশ পথে বান্দরবান-কেরাণীহাট সড়কের পাশে পার্বত্য জেলা পরিষদ সংলগ্ন এলাকায়...

বান্দরবানের অন্যতম আকর্ষণ বগালেক

ভ্রমণ ডেস্ক: বগাকাইন লেক বা বগালেক বান্দরবান জেলার রুমা উপজেলা থেকে ১৭ কিলোমিটার দূরে কেওক্রাডং পাহাড়ের কোল ঘেসে সমুদ্রপৃষ্ট থেকে প্রায়...

0 মন্তব্য

আপনার মতামত প্রকাশ করুন

Message is required.
Name is required.
Email is