ঢাকা, শুক্রবার, ২২ ফেব্রুয়ারি ২০১৯, ১০ ফাল্গুন ১৪২৫

2019-02-22

, ১৬ জমাদিউস সানি ১৪৪০

অনাবিল প্রাকৃতিক সৌন্দর্য : পাকশী রিসোর্ট

প্রকাশিত: ০৮:২২ , ১৫ অক্টোবর ২০১৭ আপডেট: ০৮:২২ , ১৫ অক্টোবর ২০১৭

ডেস্ক প্রতিবেদন: পদ্মার পাড়ে মনোমুগ্ধকর পরিবেশে প্রিয়জনদের নিয়ে ঘুরে আসতে চাইলে পাবনার ঈশ্বরদীতে অবস্থিত পাকশী রিসোর্ট হতে পারে আপনার গন্তব্য। অনাবিল প্রাকৃতিক সৌন্দর্যের পাশাপাশি পাবেন আধুনিকতার সব ধরনের ছোঁয়া। দখিনা হাওয়া ও শিশিরভেজা নিরিবিলি মনোরম পরিবেশ আপনাকে সতেজ করবে। ঢাকা থেকে কয়েক ঘন্টা দূরে আর যমুনা সেতু থেকে এক ঘন্টার দূরত্বে অবস্থিত রিসোর্টটিতে পাবেন চাহিদা অনুযায়ী সব ধরনের সুবিধা।   
ডবল বেডরুম যার প্রতিটি কক্ষই শীতাতপ নিয়ন্ত্রিত অ্যাটাচড বাথ, আর সাথে আছে মনের মতো বারান্দা ও বিশাল ডাইনিং হল। সবকিছুতেই অত্যন্ত পরিপাটি, সাজানো-গোছানো। ভেতরে পাবেন যেকোনো পাঁচতারা হোটেলের সমমানের রুচিশীল ও মূল্যবান আসবাবপত্র । রয়েছে বসার জায়গা, বুফে এবং বারবিকিউয়ের ব্যবস্থাও সাথে বৃহৎ এলাকা নিয়ে ছোট্ট একটি নিরিবিলি কুটির।নিরাপত্তার দিক থেকেও রিসোর্টটির কোনো তুলনা হয় না।
আরও আছে খেলাধুলার যাবতীয় সুযোগ-সুবিধা। লন টেনিস, বাস্কেট বল, ব্যাডমিন্টন, টেবিল টেনিস, বিলিয়ার্ড, ক্যারাম ও দাবাসহ আরও নানা ধরনের ইনডোর গেমস।
হাঁটতে পারেন ফুলবাগান বা লেকের ধারে। হেঁটে ক্লান্ত হলে বসতে পারেন শান্ত বটের ছায়ায়। সাঁতারও কাটতে পারেন সুইমিং পুলের স্বচ্ছ পানিতে। এছাড়াও রয়েছে দেশি-বিদেশি প্রায় চারশ'রও বেশী নানা প্রজাতির গাছ ও ফলের বাগান।
রিসোর্টটি থেকে পদ্মা নদীর দূরত্ব মাত্র দশ মিনিটের পথ। বিকেলে ঘুরে বেড়াতে পারেন পদ্মা নদীর ধারে। নৌকায় চড়ে বেড়াতে পারেন অনেকক্ষণ। ইচ্ছে হলে বড়শি দিয়ে মাছও ধরতে পারেন সেখানে।
অ্যাডভেঞ্চার ভালোবাসেন যারা, আয়োজন করতে পারেন ক্যাম্প ফায়ারের এবং থাকতে পারেন তাঁবুতে। এখানে রয়েছে একটি মিনি চিড়িয়াখানাও। দেখতে পাবেন চিত্রা হরিণ, বানর ও কালিম পাখি।
খাবার-দাবার:  রিসোটের্র ভেতরেই পাবেন ষড়ঋতু নামের একটি আধুনিক রেস্টুরেন্ট। এ রেস্টুরেন্টে ঘরোয়া পরিবেশে পরিবেশন করা হয় নদীর টাটকা মাছ। এছাড়াও রিসোর্টের নিজস্ব ব্যবস্থাপনায় বাংলাদেশি, ইন্ডিয়ান, চায়নিজ, থাই কিংবা অন্যান্য বিদেশি খাবারের সুব্যবস্থা রয়েছে। পাবেন দেশি-বিদেশি ফলের নানা ধরনের জুস, বেকারি ও প্যাস্ট্রি শপ।
যেভাবে যাবেন: ঢাকার মহাখালী বা কল্যাণপুর থেকে বাসে করে যেতে হবে পাবনার ঈশ্বরদীর পাকশীতে। পাকশী থেকে পাকশী রিসোটের দূরর্ত্ব মাত্র ২০-২৫ মিনিটের পথ।
ট্রেনেও যেতে পারেন আপনি। ঢাকা থেকে ট্রেনে যেতে হলে কমলাপুর বা বিমানবন্দর রেলস্টেশন থেকে উত্তরবঙ্গ বা দক্ষিণবঙ্গের যে কোনো ট্রেনে উঠে ঈশ্বরদী বাইপাস বা জংশনে নেমে পাকশী যেতে পারেন। সেখানে রিকশা বা গাড়ি নিয়ে যেতে পারেন।

 

 

এই বিভাগের আরো খবর

প্রকৃতির নিস্বর্গ শিলং

ডেস্ক প্রতিবেদন: শিলং উত্তর-পূর্ব ভারতের মেঘালয় রাজ্যের রাজধানী। সমুদ্রপৃষ্ঠ থেকে ৪ হাজার ৯০৮ ফুট উচ্চতায় অবস্থিত শিলং-এ প্রচুর বৃষ্টিপাত...

অবসরে ঘুরে আসুন জিন্দা পার্ক

ডেস্ক প্রতিবেদন: নগর জীবনের যান্ত্রিক কোলাহল ছেড়ে একটুখানি শান্তির পরস পেতে কার  না মনে চায়। আর তাই একটুখানি শান্তির ছোঁয়া পেতে অবসরে...

মেঘলা পর্যটন কমপ্লেক্স 

ডেস্ক প্রতিবেদন: মেঘলা পর্যটন কমপ্লেক্স বান্দরবান জেলার প্রবেশ পথে বান্দরবান-কেরাণীহাট সড়কের পাশে পার্বত্য জেলা পরিষদ সংলগ্ন এলাকায়...

বান্দরবানের অন্যতম আকর্ষণ বগালেক

ভ্রমণ ডেস্ক: বগাকাইন লেক বা বগালেক বান্দরবান জেলার রুমা উপজেলা থেকে ১৭ কিলোমিটার দূরে কেওক্রাডং পাহাড়ের কোল ঘেসে সমুদ্রপৃষ্ট থেকে প্রায়...

0 মন্তব্য

আপনার মতামত প্রকাশ করুন

Message is required.
Name is required.
Email is