ঢাকা, মঙ্গলবার, ২৫ সেপ্টেম্বর ২০১৮, ১০ আশ্বিন ১৪২৫

2018-09-25

, ১৪ মহাররম ১৪৪০

জানেন কি ঢাকায় কতটি জাদুঘর আছে?

প্রকাশিত: ০৪:১৫ , ১১ অক্টোবর ২০১৭ আপডেট: ০৪:১৫ , ১১ অক্টোবর ২০১৭

ডেস্ক প্রতিবেদন: ছুটির দিনে পরিবার অথবা বন্ধু নিয়ে ঘুরে বেড়াতে ভালোবাসেন না এমন মানুষ হয়তো কমই আছেন। তবে অনেকেই আছেন যারা ঘুরতে পছন্দ করলেও, দূরে যেতে অতটা পছন্দ করেননা। তারা কিন্তু চাইলেই ঘুরে দেখতে পারেন ঢাকার ভেতর অবস্থিত জাদুঘরগুলো।

কতটি জাদুঘর আছে ঢাকা শহরে? জানা থাকলে ছুটির দিনগুলোতে ঘুরে আসতে পারেন অনায়াসেই। ঢাকা শহরে আনুমানিক মোট সাতাশটি জাদুঘর রয়েছে।

লালবাগ কেল­া জাদুঘর

লালবাগ কেল­া পুরাতন ঢাকার লালবাগে অবস্থিত। সম্রাট আওরঙ্গজেব তার শাসনামলে লালবাগ কেল­া নির্মাণের ব্যবস্থা করেন। সম্রাট আওরঙ্গজেবের পুত্র যুবরাজ শাহজাদা আজম ১৬৭৮ খ্রিষ্টাব্দে এই প্রাসাদ দূর্গের নির্মাণ কাজ শুরু করেন। তৎকালীন লালবাগ কেল­ার নামকরণ করা হয় আওরঙ্গবাদ কেল­া বা আওরঙ্গবাদ দূর্গ। পরবর্তীতে সুবাদার শায়েস্তা খাঁনের শাসনামলে ১৬৮৪ খ্রিষ্টাব্দে নির্মাণ কাজ অসমাপ্ত রেখে দূর্গটি পরিত্যক্ত হয়। সে সময়ে নতুন ভাবে আওরঙ্গবাদ কেল­া বাদ দিয়ে লালবাগ কেল­া নামকরণ করা হয়।

বাংলাদেশ জাতীয় জাদুঘর

বাংলাদেশ জাতীয় জাদুঘর আমাদের দেশের প্রধান জাদুঘর। জাদুঘরটি শাহবাগ মোড়ের সন্নিকটে বঙ্গবন্ধু শেখ মজিব মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয় হাসপাতাল, রমনা পার্ক ও চার“কলা ইন্সটিটিউটের পাশে অবস্থিত। জাতীয় জাদুঘরের বিভাগগুলো হচ্ছে- ইতিহাস ও ধ্রুপদী শিল্পকলা, জাতিতত্ত¡ ও অলঙ্করণ শিল্পকলা, সমকালীন শিল্পকলা ও বিশ্বসভ্যতা, প্রাকৃতিক ইতিহাস বিভাগ এবং সংরক্ষণ গবেষণাগার।

বাংলা একাডেমি বা লোকসাহিত্য জাদুঘর

ভাষা আন্দোলনের চেতনায় গড়ে ওঠা বাংলা একাডেমি বাংলাদেশের শিল্প-সাহিত্য ও সংস্কৃতি বিষয়ক গবেষণাধর্মী এক অনন্য জাতীয় প্রতিষ্ঠান। ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের নজর“ল সড়কের বর্ধমান হাউজে এর অবস্থান।

বাংলা একাডেমির বর্ধমান হাউসের প্রথম তলায় রয়েছে জাতীয় সাহিত্য ও লেখক জাদুঘর। দোতলায় রয়েছে ভাষা-আন্দোলন জাদুঘর। এখানে রয়েছে ভাষা আন্দোলনের ঐতিহাসিক আলোকচিত্র, সংবাদপত্র, স্মারকপত্র, ব্যঙ্গচিত্র, চিঠি, প্রচারপত্র, পান্ডুলিপি, পুস্তক-পুস্তিকার প্রচ্ছদ এবং ভাষা শহীদদের স্মারকবস্তু। এছাড়াও রয়েছে বাংলা একাডেমি আর্কাইভ।  যেখানে সংরক্ষন করা হয়েছে প্রাচীন পুঁথি, প্রখ্যাত লেখকদের চিঠিপত্র, বাংলা একাডেমির ইতিহাস সংক্রান্ত কাগজপত্র, গুরুত্বপূর্ণ পরিকল্পনা, খ্যাতিমান কর্মকর্তাদের ব্যক্তিগত নথি, খ্যাতনামা ব্যাক্তিদের বাংলা একাডেমিতে আগমন সংক্রান্ত তথ্য (ভাষণ, বক্তব্য, ছবি ও মন্তব্য), বাংলা একাডেমির বার্ষিক প্রতিবেদন, বার্ষিক বাজেট, লেখা/বার্তা, বিভিন্ন অনুষ্ঠানের আমন্ত্রণপত্র, প্রেস ক্লিপিং। রয়েছে লোকঐতিহ্য জাদুঘরও। ১৯৫৮ সাল থেকে শুর“ করে ১৯৮৩ সাল পর্যন্ত দেশের বিভিন্ন অঞ্চল থেকে নিয়মিত ও অনিয়মিতভাবে লোকসাহিত্যের যেসব  উপাদান সংগ্রহ করা হয়েছে তা প্রায় অর্ধশতাব্দি ধরে একাডেমির ফোকলোর আর্কাইভস এ সংরক্ষিত আছে।

জাতীয় বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি জাদুঘর

জনসাধারণের মধ্যে বিজ্ঞান অনুরাগ ও বিজ্ঞান সচেতনতা সৃষ্টির লক্ষে আগারগাঁও শেরেবাংলা নগরের শহীদ সাহাবুদ্দিন সড়কের পাশেই রয়েছে জাতীয় বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি জাদুঘর। জাতীয় বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি জাদুঘরে রয়েছে সর্বমোট ৬ টি গ্যালারী।

ডাক জাদুঘর

জিপিও (জেনারেল পোস্ট অফিস) এর কাউন্টারের পাশে ডাক অধিদপ্তরের তৃতীয় তলায় এ জাদুঘরের অবস্থান। বাংলাদেশের ডাক ব্যবস্থার ইতিহাস এবং ক্রমবিকাশ সম্বন্ধে সকলকে জানানোর জন্যই এই জাদুঘর গড়ে তোলা হয়েছিল।

এছাড়া রমনা এলাকায় দুর্নীতি দমন কমিশন-দুদকের পাশে রয়েছে বাংলাদেশ শিল্পকলা একাডেমি। মিরপুরে চিড়িয়াখানার ভেতরে অবস্থিত ঢাকা চিড়িয়াখানা প্রানি জাদুঘর, ঢাকা-চট্টগ্রাম মহাসড়কের পাশে মোগড়া পাড়া এলাকা থেকে উত্তরে রয়েছে শিল্পাচার্য জয়নুল লোক ও কার“শিল্প জাদুঘর, শাহাবাগের দোয়েল চত্ত¡রে শিশু একাডেমীর ভেরতে আছে শিশু জাদুঘর।

বিজয় সরনীতে রয়েছে বাংলাদেশ সামরিক জাদুঘর, ঢাকা দক্ষিণ সিটি কর্পোরেশন (নগর ভাবন) এর ষষ্ঠ তলায় রয়েছে ঢাকা নগর জাদুঘর। ধানমন্ডির ১০ নং রোডের ৫ নম্বর বাড়িতে অবস্থিত ভাষা আন্দোলন জাদুঘর।

আহসান মঞ্জিল

পুরান ঢাকার ইসলামপুরে অবস্থিত আহসান মঞ্জিল। এর পূর্বনাম ছিল রংমহল। অষ্টাদশ শতাব্দীর মাঝামাঝি সময়ে জালালপুর পরগণার জমিদার শেখ ইনায়েতউল­াহ রংমহল নামে একটি প্রমোদভবন তৈরি করেন। পরবর্তীতে তাঁর পুত্র রংমহলটি এক ফরাসি বণিকের নিকট বিক্রি করে দেন। বাণিজ্য কুটির হিসাবে এটি দীর্ঘদিন পরিচিত ছিল। এরপরে ১৮৩৫-এ বেগমবাজারে বসবাসকারী নওয়াব আবদুল গণির পিতা খাজা আলীমুল­াহ এটি ক্রয় করে বসবাস শুরু করেন। নওয়াব আবদুল গণি ১৮৭২ সালে প্রাসাদটি নতুন করে নির্মাণ করান। নতুন ভবন নির্মাণের পরে তিনি তাঁর পুত্র খাজা আহসানউল­াহর নামানুসারে এর নামকরণ করেন আহসান মঞ্জিল। আহসান মঞ্জিল জাদুঘরের নাম ঢাকা মহানগর জাদুঘর। বহু ইতিহাসের সাক্ষী আহসান মঞ্জিলের সৌন্দর্য সবারই একবার উপভোগ করা প্রয়োজন।

এদিকে, ঢাকার ধানমন্ডির ৩২ নম্বর রোডে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের স্মৃতি সংরক্ষণার্থে তাঁর বাড়িটিতে জাদুঘর স্থাপন করা হয়েছে ১৯৯৪ সালে।

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের সামাজিক বিজ্ঞান অনুষদের পাশে অবস্থিত ডাকসু সংগ্রহশালা। এখানে সংরক্ষিত রয়েছে ভাষা আন্দোলন ও মুক্তিযুদ্ধের বিভিন্ন নিদর্শন। এছাড়া শাহবাগ সোহরাওয়ার্দি উদ্যানের ভেতরে শিখা চিরন্তনের কাছেই রয়েছে স্বাধীনতা জাদুঘর।

নভোথিয়েটার, বাংলাদেশ ব্যাংকের প্রধান কার্যালয়ে টাকা জাদুঘর, আগাঁরগাওয়ে বিমান জাদুঘর, বাংলাদেশ পুলিশ মুক্তিযুদ্ধ যাদুঘর, ভাষা শহীদ আবুল বরকত স্মৃতি জাদুঘর ও সংগ্রহশালা, ভাষা জাদুঘর, বঙ্গবন্ধু ও চার নেতা কারা জাদুঘর, শহীদ জননী জাহানারা ইমাম স্মৃতি জাদুঘর, বাঙালি সমগ্র জাদুঘর, বিজয় কেতন মুক্তিযুদ্ধ জাদুঘর এবং মুক্তিযুদ্ধ জাদুঘর।

 

এই বিভাগের আরো খবর

টলটলে পানি, একরাশ সবুজ, আড়িয়াল বিল

ডেস্ক প্রতিবেদন: ২৬০ বর্গমাইল এলাকা এবং এক লাখ ৬৬ হাজার একর জমি নিয়ে আড়িয়াল বিল। যার পুরোটাই শষ্যক্ষেত্র, জলাশয় আর জনবসতি। যেখানে এক টুকরা...

জাতিসংঘের অধিবেশনে যোগ দিতে ঢাকা ছাড়ছেন প্রধানমন্ত্রী

নিজস্ব প্রতিবেদক: জাতিসংঘের সাধারণ পরিষদের- ইউএনজিএ’র ৭৩তম অধিবেশনে যোগ দিতে নিউইয়র্কের পথে লন্ডনের উদ্দেশে ঢাকা ছাড়ছেন প্রধানমন্ত্রী...

সরকারি অর্থে আকাশপথ ভ্রমণে বিমান বাংলাদেশ বাধ্যতামূলক

নিজস্ব প্রতিবেদক: সরকারি অর্থে আকাশ পথে ভ্রমণের ক্ষেত্রে বিমান বাংলাদেশ এয়ারলাইন্সের ফ্লাইট ব্যবহার বাধ্যতামূলক করেছে সরকার। বুধবার...

সরকারি অর্থে আকাশপথ ভ্রমণে বিমান বাংলাদেশ বাধ্যতামূলক

নিজস্ব প্রতিবেদক: সরকারি অর্থে আকাশ পথে ভ্রমণের ক্ষেত্রে বিমান বাংলাদেশ এয়ারলাইন্সের ফ্লাইট ব্যবহার বাধ্যতামূলক করেছে সরকার। বুধবার...

0 মন্তব্য

আপনার মতামত প্রকাশ করুন

Message is required.
Name is required.
Email is